Home আঞ্চলিক অবশেষে জমে উঠেছে জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাচন, লড়াই হবে ত্রিমুখি

অবশেষে জমে উঠেছে জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাচন, লড়াই হবে ত্রিমুখি

296
0

জগন্নাথপুর প্রতিনিধি: আগামি ৬ মার্চ জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানসহ ৩ পদে মোট ১১ জন প্রার্থী লড়াই করছেন। তাঁদের মর্যাদার লড়াইয়ে চেয়ারম্যান পদে ত্রিমুখি লড়াই হবে বলে ভোটার ও দলীয় নেতাকর্মীরা জানান।
এবারের নির্বাচনে অংশ গ্রহনকারী প্রতিদ্বন্ধি চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন, আ.লীগের দলীয় মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী জগন্নাথপুর উপজেলা আ.লীগের সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আকমল হোসেন (নৌকা), আ.লীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদির আহমদ মুক্তা (আনারস) এবং বিএনপির দলীয় মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আতাউর রহমান (ধানের শীষ) ।
এর মধ্যে দলীয় প্রতীক, ব্যক্তি ইমেজ, প্রচার-প্রচারণা ও গণসংযোগে আকমল হোসেন এগিয়ে থাকলেও বিগত দিনে কাঙ্খিত উন্নয়ন না হওয়ায় কিছু সংখ্যক ভোটার তাঁর উপর ক্ষুব্দ রয়েছেন বলে স্থানীয় ভোটরদের মধ্যে অনেকে জানান। তবে শেষ সময়ে নৌকার বিজয় হবে বলে দলীয় নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন।
আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মুক্তাদির আহমদ মুক্তা ব্যক্তি ইমেজ, প্রচার-প্রচারণা ও গণসংযোগে এগিয় থাকলেও তাঁকে দল থেকে বহিস্কার করায় তাঁর পক্ষে দলীয় নেতাকর্মীরা প্রকাশ্যে মাঠে নামতে না পারায় তিনি কিছুটা বেকায়দায় রয়েছেন। তবে শেষ সময়ে আনরস প্রতীকের বিজয় হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে তাঁর সমর্থকরা জানান।
বিএনপির প্রার্থী আতাউর রহমান দলীয় প্রতীক ও ব্যক্তি ইমেজে এগিয়ে থাকলেও দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে পর্যাপ্ত সমন্বয় না থাকায় এবং কাঙ্খিত প্রচার-প্রচারণা না থাকায় তিনি এখনো অনেকটা পিছিয়ে রয়েছেন। তবে শেষ সময়ে এসে ধানের শীষের বিজয় হবে বলে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে অনেকে জানিয়েছেন। সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত কোন প্রার্থী সুবিধাজনক অবস্থানে না থাকলেও শেষ সময়ে এসে তাঁদের মধ্যে লড়াই হবে ত্রিমুখি। এমন মন্তব্য দলীয় নেতাকর্মী ও ভোটারদের।
এছাড়া ভাইস চেয়ারম্যান পদে আ.লীগের দলীয় মনোনীত প্রার্থী উপজেলা আ.লীগের তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক বিজন কুমার দে (নৌকা), আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা যুবলীগের সভাপতি কামাল উদ্দিন (তালা), বিএনপির দলীয় মনোনীত প্রার্থী সুহেল আহমদ খান টুনু (ধানের শীষ), স্বতন্ত্র প্রার্থী ফয়জুল হক (টিউবওয়েল) ও জমিয়তের মনোনীত প্রার্থী সৈয়দ ছলিম আহমদ কাসেমী (খেজুর গাছ) ।
এর মধ্যে প্রতীক ইমেজে বিজন কুমার দে, ব্যক্তি পরিচিতিতে কামাল উদ্দিন ও দলীয় এবং ব্যক্তি ইমেজে সুহেল আহমদ খান টুনু এগিয় রয়েছেন। ভাইস চেয়ারম্যান পদেও লড়াই হবে ত্রিমুখি বলে দলীয় নেতাকর্মী ও ভোটাররা জানান। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী ফয়জুল হকও চমক দেখাতে পারেন বলে মনে করেন অনেকে।
মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আ.লীগের মনোনীত প্রার্থী উপজেলা আ.লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা হাজেরা বারী (নৌকা), বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ফারজানা আক্তার (ধানের শীষ) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সুফিয়া খানম সাথী (ফুটবল) ।
এর মধ্যে দলীয় প্রতীক, ব্যক্তি ইমেজ, পরিচিতি, প্রচার-প্রচারণা ও গণসংযোগে হাজেরা বারী এগিয়ে রয়েছেন। বাকি প্রার্থীরাও তাঁদের বিজয় নিশ্চিতের লক্ষে মাঠে কাজ করে যাচ্ছেন।

Previous articleরাসুল (সা.) এর দেখানো পথে সকল মুসলমানদের চলতে হবে: আওলাদে রাসুল
Next article২০১৮ সালের মধ্যে পদ্মা সেতু নির্মাণ শেষ: সেতুমন্ত্রী