আর সার্জারি নয়, আই ড্রপেই চোখের ছানি উধাও!

0
546

নিউজ ডেস্ক: চোখের ছোটখাটো সমস্যায় ‘আই ড্রপ’ ব্যবহার করি আমরা। বিজ্ঞানীরা নতুন এক ধরনের আই ড্রপ নিয়ে কাজ করছেন। তাদের দাবি, চোখের ছানি পড়ার মতো সমস্যা দূর করতে আর সার্জারির প্রয়োজন হবে না। এই আই ড্রপের মাধ্যমেই অন্ধত্ব থেকে রক্ষা পাবে মানুষ। তবে এখন পর্যন্ত গবেষণার পর্যায়ে রয়েছে আই ড্রপটি।

বিজ্ঞান বিষয়ক জার্নাল ‘নেচার’-এ প্রকাশিত গবেষণাপত্রে বিজ্ঞানীরা জানান, চোখের যে সমস্যায় সবচেয়ে বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়ে থাকেন, তা হলো ছানি। সাধারণত বয়সের কারণে চোখে ছানি পড়ে। তবে ট্রমা, রেডিয়েশন বা জন্মগত কারণেও ছানি পড়তে পারে। অন্ধত্ব থেকে বাঁচতে গোটা বিশ্বে প্রতিবছর ১ কোটিরও বেশি মানুষকে অপারেশন থিয়েটারে ছুরি-চাকুর নিচে শুতে হয়। এখন পর্যন্ত চোখের লেন্সের এই ঘোলা উপাদান দূর করতে সার্জারিই বহুল ব্যবহৃত।
যদিও সার্জারি এখন পর্যন্ত নিরাপদ এবং সমস্যার সুষ্ঠু সমাধান দেয়। কিন্তু অনেক মানুষের পক্ষে সার্জারি নেওয়া সম্ভব হয় না। অর্থনৈতিক বা স্বাস্থ্যগত কারণে চোখের সংশ্লিষ্ট অপারেশন করতে পারেন না তারা। বর্তমানে যারা এ সমস্যায় ভুগছেন, আগামী ২০ বছরে এদের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়ে যাবে। তাই সার্জারির বিকল্প বের করতেই এ গবেষণা প্রচেষ্টা।

চীনের গুয়াংঝুয়ের সান ইয়াত-সেন ইউনিভার্সিটির গবেষক কাং ঝাং জানান, প্রাকৃতিক উপায়ে উৎপন্ন এক ধরনের উপাদান, যার নাম ‘ল্যানোস্টেরল’। একে আই ড্রপের মাধ্যমে ছানিতে প্রয়োগ করা হয়। দেখা যায়, ছানির বৃদ্ধি বন্ধ হয়ে গেছে। এমনকি যে ছানি ইতিমধ্যে পড়েছে তাও দূর হয়ে গেছে। চোখের লেন্স গঠনে যে প্রোটিন কাজ করে তা গুচ্ছ আকারে জমা হয়ে ছানির সৃষ্টি করে। ল্যানোস্টেরল সেই প্রোটিনকে দূর করে দেয়।
দুটো শিশুর চোখে ওই আই ড্রপ প্রয়োগ করা। এতে বেশ সুফল পাওয়া গেছে। ঝাং এবং তার সহকর্মীরা দেখেন, দেহের যে জিন চোখে ছানি সৃষ্টিতে দায়ী, আই ড্রপটি তার সঙ্গে ক্রিয়া করছে এবং এর বৃদ্ধি রোধ করেছে।
প্রাথমিক পর্যায়ে কুকুরের চোখের ছানিতে ল্যানোস্টেরল প্রয়োগ করে কার্যকারিতার প্রমাণ পাওয়া যায়। টানা ছয় সপ্তাহের চিকিৎসায় কুকুরের চোখের ছানির পরিমাণ দারুণভাবে কমে যায়। সূত্র: এমএসএন

Print Friendly, PDF & Email