আলাদা জোটে নির্বাচনে অংশ নিবে জাপা: এরশাদ

0
129

রংপুর : জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ আলাদা জোট গঠনের ইঙ্গিত দিয়ে বলেছেন, আমি এককভাবে নির্বাচন করবো। বিএনপি এককভাবে নির্বাচন করবে। আওয়ামী লীগ এককভাবে নির্বাচন করবে। আমার সাথে কেউ যদি জোট করে তাতে ক্ষতির কিছু নেই। সোমবার  দুপুরে রংপুরের দর্শনার পল্লী নিবাসে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।
জোট গঠন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘১৪ দলীয় জোট আছে। ২০ দলীয় জোট আছে। আমারও একটি জোট হবে। অনেকেই আমার সাথে দেখা করেছেন। এখনো ঘোষণা দেইনি। তবে যে দলের শক্তি আছে সামর্থ আছে তাদের সাথে আলাপ-আলোচনা করে আমরা জোটের ঘোষণা দেবো। আলাদা জোট করলে ইলেকশনের কাছাকাছি সময়ে মন্ত্রীরা ফিরে আসবেন। সময় হলে তারা আসবে। আসতে তারা বাধ্য। সবার জোট আছে, আমার জোট করলে অসুবিধা কি ?
খালেদা জিয়াকে ছাড়া নির্বাচনে অংশ নেবে না বলে বিএনপি নেতাদের বক্তব্য প্রসঙ্গে এরশাদ বলেন, ‘বিএনপি নির্বাচনে আসতে বাধ্য। নির্বাচনে না আসলে বিএনপির নিবন্ধন বাতিল হয়ে যাবে। দল হিসেবে তারা থাকবে না। যত কথাই বলুক নির্বাচনে তারা আসতে বাধ্য।’
বর্তমান নির্বাচন কমিশন প্রসঙ্গে এরশাদ বলেন, ‘এই নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ হবে বলেই আমরা আশা করি। আমরা বাঙ্গালী কোনোটাকেই ভালোভাবে দেখি না, এটা আমাদের দোষ। ওনারা তো মাত্র এসেছেন। ওনারা কাজ করলে বোঝা যাবে। ওনারা নির্দলীয়, নিরপেক্ষ কিনা। তাদের সুযোগ দেওয়া হোক। আমরা বলেছি। ওনি এসেছেন, কাজ শুরু করুক। আশা করি আমাদের মনের আশাটা পূরণ করবেন। একটা সুষ্ঠু নির্বাচন করবেন। আমাদের আশা যেন আল্লাহ পূরণ করেন।’
ভাষা আন্দোলন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ভাষা আন্দোলন শুরু হয়েছিল ১৯৫২ সালে। কিন্তু বাংলা ভাষা কেউ চালু করেনি। আমি ১৯৮৬ সালে পার্লামেন্টে আইন করে বাধ্যতামূলকভাবে বাংলা ভাষা চালু করেছিলাম। সকল সরকারি নথিপত্রে, সাইন বোর্ডে বাংলা ভাষা থাকতে হবে। বাংলা তারিখ লিখতে হবে। বাংলায় সব কিছু করতে হবে। এটা আমিই করেছিলাম। শহীদদের মনের ভাষা আমি বুঝতে পেরেছিলাম। সেই ভাষা আমি চালু করেছি। প্রত্যেকটা সাইনবোর্ডে বাংলা লেখা থাকতে হবে এটা বাধ্যতামূলক করেছিলাম। আমি এখন নাই ক্ষমতায়। থাকলে আমরা এগুলো কেন বাস্তবায়ন হচ্ছে না তা খতিয়ে দেখতাম ও বাধ্যতামূলকভাবে চালু করতাম।
২১ ফেব্রুয়ারিতে তিনি রংপুর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি দিবেন।
এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন দলের কো-চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী জিএম কাদের, রংপুর জেলা সভাপতি সাবেক এমপি মোফাজ্জল হোসেন মাস্টার, মহানগর সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, জেলা সেক্রেটারি সাবেক এমপি আসিফ শাহরিয়ার, মহানগর সেক্রেটারি এসএম ইয়াসির, কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য শাফিউল ইসলাম শাফি প্রমুখ।
– See more at: http://bangla.thereport24.com/article/181445/%E0%A6%86%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%A6%E0%A6%BE-%E0%A6%9C%E0%A7%8B%E0%A6%9F%E0%A7%87-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%9A%E0%A6%A8%E0%A7%87-%E0%A6%85%E0%A6%82%E0%A6%B6-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%AC%E0%A7%87-%E0%A6%9C%E0%A6%BE%E0%A6%AA%E0%A6%BE-:-%E0%A6%8F%E0%A6%B0%E0%A6%B6%E0%A6%BE%E0%A6%A6#sthash.aBxMRIqY.dpuf

Print Friendly, PDF & Email