উন্নয়ন কর্মকান্ড নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে ড. সামছুল হক চৌধুরী’র মতবিনিময়

0
105

সিলেট:  সাংসদ না হয়েও এলাকা ও জনগনের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন সুনামগঞ্জ-২ আসনের দিরাই-শাল্লার সন্তান আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপকমিটির সদস্য ও যুক্তরাজ্য শ্রমিক লীগের সভাপতি ড. মো. সামছুল হক চৌধুরী। তিনি সম্প্রতি পরিকল্পপনা মন্ত্রনালয় থেকে ডিও লেটারের মাধ্যমে জনগণের স্বার্থে দিরাই উপজেলায় কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্মান প্রকল্প, শাল্লায় কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্মান প্রকল্প, দিরাই শেখ রাসেল স্টেডিয়াম নির্মাণ ও ২০ আসন বিশিষ্ট হাসপাতালে নির্মান বাস্তবায়ন প্রকল্প পাশ করিয়েছেন। যা একজন স্থানীয় সংসদ সদস্য থাকা সত্যেও পারেন নি। সারাদেশে উন্নয়নের জোয়ার বয়ে গেলেও দিরাই-শাল্লায় এখন পর্যন্ত উন্নয়নের ছোঁয়া পড়েনি। বর্তমান সাংসদ জয়া সেনগুপ্ত সংসদ সদস্য হয়েছেন পরপর দুবার কিন্তু ভাটি এলাকার ভাগ্য যেনো পুরনোই রয়েগেছে। এই নির্বাচনী এলাকা আমার। তাই এই দায়িত্ব তো কাউতে নিতেই হবে। মঙ্গলবার দুপুরে সিলেটের একটি অভিজাত হোটেলে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় তিনি লিখিত বক্তব্য পাঠকালে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় তিনি বলেন, আমি মনে প্রাণে বিশ^াস করি মানব সেবা করতে হলে জনপ্রতিনিধি লাগে না। মানব সেবা কে আমি ইবাদত মনে করি। আমি নিজ উদ্যেগে অনেক কাজ করেছি, মসজিদ মাদ্রাসাসহ অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। কিন্তু এগুলো ছোট ছোট হলে ও বড় আকারে করতে হলে বড় অনুদান প্রয়োজন তাই সময়ের ¯্রােতে আমি কারিগরি শিক্ষা অনগ্রসর দিরাই ও শাল্লা উপজেলা একটি করে কারিগরি কলেজ স্থাপনের জন্য গত ১৮ নভেম্বর শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি বরাবর পৃথক দুটি আবেদন করি। এ দুটি আবেদনে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সুপারিশ করেন। একই দিন দিরাই উপজেলার জগদল গ্রামে নির্মাণাধীন ২০ শয্যা উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসক ও জনবল দেওয়ার জন্যা স্বাস্থ্য মন্ত্রী জাহেদ মালেক এমপি বরাবর আবেদন করি। এ আবেদনটিও পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সুপারিশ করেন। এছাড়াও দিরাই উপজেলায় একটি শেখ রাসেল স্টেডিয়াম করার জন্য যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল বরাবর আরো একটি আবেদন করি। এ আবেদনটিতেও পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান সুপারিশ করেন। এর প্রেক্ষিতে ২৪ নভেম্বর পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান শিক্ষামন্ত্রী, স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বরাবর ডিও লেটার দিয়েছেন। এসময় তিনি দিরাই ও শাল্লাবাসীর পক্ষ থেকে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানকে অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা জানান।
সামছুল চৌধুরী জানান, সুনামগঞ্জ-২, আসনে গত দুই টার্মে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে জাতীয় সংসদ পদের জন্য মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন তিনি। কিন্তু তিনি শেখ হাসিনার নির্দেশকে মেনে নিয়ে নির্বাচন থেকে সড়ে দাড়ান। তিনি পারিবারিকভাবেই স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের সৈনিক। তাই ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের রাজনীতির মাধ্যমে এই আদর্শের পথে আমার যাত্রা শুরু/অতীতে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন এবং ১/১১ থেকে শুরু করে সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে ছাত্রলীগের লড়–ক সৈনিক হিসেবে অধ্যাবধী দেশে ও প্রবাসে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্টায় কাজ করেছেন। ছাত্রজীবনের পর থেকে পারিবারিক প্রয়োজনে দেশের বাহিরে অবস্থান করলেও সেখানে থেকেও তার রাজনৈতিক তৎপরতা থেমে থাকেনি। এলাকার মানুষের উন্নয়নে বিভিন্ন সড়ক নিমার্ণসহ মসজিদ, মাদ্রাসা, মন্দিরের উন্নয়নে কাজ করেছেন। তিনি ব্যক্তিগতভাবে সাধারণ মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে কর্মকান্ডে ছাত্রজীবন থেকে দীর্ঘ প্রায় ৩৪ বৎসর যাবৎ আওয়ামী রাজনীতি ও বিভিন্ন আর্থ-সামাজিক সংগঠনের সাথে অতপ্রোতভাবে জড়িত থেকে এলাকার উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। আগামীতে দিরাই-শাল্লাবাসীকে সাথে নিয়ে বর্তমান সরকারের গ্রামকে আধুনিক নগর সুবিধা প্রদানে দুই উপজেলার প্রতিটি গ্রামকে হবে শহরে রুপান্তরিত করার জন্য কাজ করে যাবেন। এছাড়া কৃষি নির্ভর এই দুই উপজেলার কৃষকদের আধুনিক কৃষকে তৈরী এবং প্রযুক্তির ব্যবহার ও কৃষককে প্রযুক্তিবান্ধব করার পরিকল্পনাকে এই বিনিয়োগের আওতায় আনার জন্য মহাপরিকল্পনাও রয়েছে তার।

Print Friendly, PDF & Email