কেসিসি নির্বাচনও স্থগিত হওয়ার শঙ্কা রয়েছে: মির্জা ফখরুল

0
125

খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনও স্থগিত এবং পুরোপুরিভাবে বাতিল করতে সরকার নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) সঙ্গে নিয়ে নীল-নকশা করছে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বুধবার রাতে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারর্সন বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে এক জরুরি বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন স্থগিত ও পুরোপুরিভাবে বাতিল করতে সরকার ইসিকে সঙ্গে নিয়ে নীল-নকশা করছে। আমাদের কাছে এই সংবাদ এসেছে। তবে সত্যতা পাইনি। এই নির্বাচন (খুলনা সিটি) স্থগিত করার জন্য একটি রিট হতে পারে, বলে আমরা শুনতে পাচ্ছি।

গাজীপুর নির্বাচন স্থগিত প্রসঙ্গে সরকারকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, নির্বাচন ঘোষণা করাই দরকার কি? আর নির্বাচন নির্বাচন খেলাই বা দরকার কি?। নির্বাচন কমিশন বারবার বলছে, তারা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন করতে চায়। গাজীপুর ও খুলনা নির্বাচনে আমাদের যে অভিজ্ঞা হয়েছে, এতে বুঝা যায়, সুষ্ঠু নির্বাচন করার যোগ্যতা এই নির্বাচন কমিশনের নেই। একেবারেই যোগ্য নয়। দলীয় লোক হিসেবে তারা (ইসি) কাজ করছেন। আমরা বলেছি, তারা দলীয় মানুষ হিসবেই কাজ করছেন।

খুলনায় নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা দেয়া হচ্ছে অভিযোগ করে ফখরুল বলেন, অবিলম্বে খুলনায় ডিআইজি ও পুলিশ কমিশনারকে প্রত্যাহার করতে হবে। অন্যথায় সেখানে নির্বাচন করা খুবই দুরহ হয়ে যাবে।

গাজীপুর সিটি নির্বাচন স্থগিত হয়েছে, তবে খুলনা নির্বাচন রয়েছে উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, খুলনায় বর্তমান যে পরিস্থিতি, এতে করে সুষ্ঠু নির্বাচনের অনুকূল পরিবেশ নেই। কারণ মঙ্গলবারও বিএনপির প্রায় ১শ’ ৫০ জন নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হয়েছে। যার ফলে খুলনায় নির্বাচনে কার্যক্রম ও প্রচারণা করা অত্যান্ত কষ্টকর হয়ে গেছে।

আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধি দল ইসিতে গেয়েছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারা সেখানে হাস্যকর কথা বলেছেন। বলেছেন, খুলনাতে নির্বাচনের অনুকূল পরিবেশ ও লেভেল প্লিয়ং ফিল্ড নেই।

মির্জা ফখরুল জানান, আজকে এই বৈঠকের আলোচনার বিষয়বস্ত জানাতে নজরুল ইসলাম খানের নেতৃত্বে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশনে যাবে। তবে যাওয়ার সময় এখনও নির্ধারিত হয়নি, হলে আপনাদের জানাব হবে।

নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, নির্বাচন কমিশন সরকারের আনুগত্য হয়ে কাজ করছে। তাদের দিয়ে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়। তারা সরকারের কথার বাহিরে কোন কাজ করতে পারে না।

তিনি আরো বলেন, নির্বাচন কমিশন গঠন করার আগে সব রাজনৈতিক দলের মতামত দিয়েছিল নিরপেক্ষ ব্যক্তি দিয়ে কমিশন গঠনের। কিন্তু সরকার সকল দলের মতামত উপেক্ষা করে নিজের দলের রোক দিয়ে কমিশন গঠন করেছে। প্রধান নির্বাচন কমিশনার নিরপেক্ষ নয়। তারপরেও আমরা স্থানীয় সকল নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করছি গণতন্ত্রকে পুনর্গঠন করতে।

মির্জা ফখরুল বলেন, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে খুলনা সিটি কর্পোরশনে বিএনপির প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু বিপুল ভোটে বিজয়ী হবে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email