জগন্নাথপুরের রানীগঞ্জ কুশিয়ারা সেতুর কাজ আগস্টে শুরু

0
219

বিশেষ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের সঙ্গে রাজধানী ঢাকার দূরত্ব কমাতে এবং জগন্নাথপুরবাসীর দীর্ঘদিনের স্বপ্ন কুশিয়ারা নদীর রানীগঞ্জ সেতুর কাজ আগস্টের প্রথম সপ্তাহে শুরু হচ্ছে। ইতিমধ্যে সিলেট বিভাগের দীর্ঘ এই সেতুর নির্মাণ কাজের দরপত্র গ্রহণ করা হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, আগস্টের প্রথম সপ্তাহে এই সেতুর কাজ শুরু হবে।

জানা যায়, সুনামগঞ্জ থেকে ঢাকার দূরত্ব প্রায় ৫০ কিলোমিটার কমাতে এবং প্রবাসী অধ্যুষিত জগন্নাথপুরবাসীর যোগাযোগ ব্যবস্থার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে ইতিপূর্বে সুনামগঞ্জ-সিলেট সড়কের আব্দুর রইছ চত্বর (ডাবর এলাকা) থেকে নবীগঞ্জের ইনাতগঞ্জ পর্যন্ত প্রায় ৫৫ কিলোমিটার সড়কের কাজ শেষ হয়েছে।

অন্যদিকে, ইনাতগঞ্জ থেকে ঢাকা-সিলেট সড়কের আউশকান্দি পর্যন্ত সড়ক রয়েছে আগে থেকেই। এই অবস্থায় ছোট ছোট যানবাহন চলাচলের জন্য গত বছর রানীগঞ্জের কুশিয়ারায় ফেরী চালু করা হয়েছে। এই সড়ককে সুনামগঞ্জসহ ভাটী অঞ্চলের মানুষের প্রধান সড়ক করার প্রতিশ্রুতি ছিল সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদ আজাদের। বর্তমান অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয়   কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য সংসদ সদস্য এম এ মান্নানের ছিল একই প্রতিশ্রুতি।

২০১০ সালে স্থানীয় সংসদ সদস্য এম এ মান্নানের অনুরোধে সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের জনসভায় বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কুশিয়ারায় সেতু নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। ২০১৪ সালের ২৫ জুন একনেকের সভায় প্রধানমন্ত্রী এই সেতুর ১২৫ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন করেন।

গত বছর জুন মাসে সেতুর দরপত্র আহ্বান করা হয়। দরপত্রে অংশ নেয় দেশী-বিদেশী ৩ টি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে- চায়নিজ কোম্পানী সি আর ২৪ বি এবং বাংলাদেশী ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এম বি ই এল যৌথ উদ্যোগ, বাংলাদেশী ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান প্রজেক্ট বিল্ডার্স ও জামিল ইকবাল যৌথ উদ্যোগ, ভারতীয় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান পিভিসিল এবং বাংলাদেশী ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ড্যানকো’র যৌথ উদ্যোগ। এই প্রতিষ্ঠানগুলোর দরপত্র গ্রহণ শেষে কারিগরি মূল্যায়ন সম্পন্ন হয়েছে। কারিগরি মূল্যায়ন শেষে অর্থনৈতিক মূল্যায়নের জন্য ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রী সভা কমিটির অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে প্রকল্পটি।

সড়ক ও জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলী আনোয়ারুল আমিন জানান, অর্থনৈতিক মূল্যায়ন শেষে মাঝখানের অংশটি, যেটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ডিজাইন করবে-নির্মাণও করবে, ঐ অংশটি বুয়েট কতৃক যাচাই করা হবে। এরপর জুলাইয়ের শেষ সপ্তাহে কুশিয়ারা সেতুর নির্মাণ কাজের কার্যাদেশ দেওয়া হবে এবং আমরা আশা করছি আগস্টের প্রথম সপ্তাহে এই সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হবে’।

Print Friendly, PDF & Email