জগন্নাথপুরে তরুণীকে অপহরণের পর ধর্ষণ

0
189

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে এক তরুণীকে অপহরণের ধর্ষণ করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে জগন্নাথপুর উপজেলার রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের রাণীনগর গ্রামের পাশে কুশিয়ারা নদীতে। এ নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।জানা গেছে, বুধবার রাত ১০ টার দিকে জগন্নাথপুর পৌর এলাকার হবিবপুর কাচি বিলেরপাড় গ্রামের দিনমজুর আব্দুল করিমের মেয়েকে (১৮) বাড়ি থেকে নৌকাযোগে অপহরণ করে নিয়ে যায় পৌর এলাকার ইকড়ছই গ্রামের বারিক উল্লার ছেলে এলাকার চিহিৃত অপরাধী জুয়েল মিয়া। পরে অপহরণকারী জুয়েল মিয়া অপহৃতা তরুণীকে তুলে দেয় জগন্নাথপুর উপজেলার সৈয়দপুর-শাহারপাড়া ইউনিয়নের শাহারপাড়া গ্রামের মৃত মনর মিয়ার ছেলে যুক্তরাজ্য প্রবাসী শফিকুল ইসলামের হাতে।এ সময় প্রবাসী শফিকুল ইসলাম (৩৫) অপহৃতা তরুনীকে নৌকাযোগে উপজেলার রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের রাণীনগর গ্রামের পাশে কুশিয়ারা নদীতে নিয়ে ধর্ষণ করে।এদিকে, কুশিয়ারা নদীর মধ্যস্থানে নৌকা দেখে এলাকার লোকজনের সন্দেহ হয়। পরে এলাকার যুব সমাজের লোকজন আরো নৌকা নিয়ে গিয়ে এ নৌকাসহ প্রবাসী শফিকুল ইসলাম ও অপহৃতা ধর্ষিতা তরুণীকে আটক করে স্থানীয় রাণীগঞ্জ বাজারে নিয়ে রাখে। খবর পেয়ে রাতেই জগন্নাথপুর থানার এস আই রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়।এ সময় ধৃত প্রবাসী শফিকুল ইসলাম কৌশলে পালিয়ে গেলে আটককৃত অপহৃতাকে পুলিশে সোপর্দ করেন স্থানীয় জনতা।এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে স্থানীয় লোকজন জানান, নারী লোভী ও মাদকসেবী প্রবাসী শফিকুল ইসলামের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে তার গ্রামের লোকজন তাকে গ্রাম থেকে তাড়িয়ে দিয়েছেন। সে কয়েক মাস ধরে স্থানীয় বাগময়না গ্রামে তার মামার বাড়িতে থেকে এসব অসামাজিক কার্যকলাপ করছে। তার অত্যাচারে এখন আমরাও অতিষ্ট হয়ে পড়েছি।ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জগন্নাথপুর থানার এস আই রফিকুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় অপহৃতা-ধর্ষিতা তরুণী নিজে বাদী হয়ে অপহরণকারী জুয়েল মিয়া ও ধর্ষণকারী প্রবাসী শফিকুল ইসলামসহ ৪ জনকে আসামী করে জগন্নাথপুর থানায় মামলা দায়ের করেছেন। বৃহস্পতিবার ভিকটিমকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email