জগন্নাথপুরে ভবন ভাংচুরে ৩০ লক্ষ টাকার ক্ষতি: বাড়ি ছাড়া প্রবাসী পরিবার

0
153

কলি বেগম, জগন্নাথপুর: জগন্নাথপুরে থানা পুলিশ এক মামলার আসামিকে গ্রেফতার করার কারণে প্রতিপক্ষের হামলায় প্রবাসীর দ্বিতীয় তলা ভবন ভাংচুরের ঘটনায় ৩০ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়া প্রতিপক্ষের ভয়ে ৩ স্কুল ও কলেজ পড়–য়া ছাত্রীর স্কুল ও কলেজে যাওয়া বন্ধ রয়েছে। সেই সাথে প্রতিপক্ষের ভয়ে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন প্রবাসী পরিবারের লোকজন। ঘটনাটি ঘটেছে জগন্নাথপুর উপজেলার আশারকান্দি ইউনিয়নের জামালপুর (রুপসপুর) গ্রামের। এ নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, জামালপুর (রুপসপুর) গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসী হাজেরা বিবির কাছে বিভিন্ন অজুহাতে চাঁদা দাবি করে একই গ্রামের উস্তার উল্লার লোকজন। এরই জের ধরে দীর্ঘদিন যাবত তাদের মধ্যে বিরোধ ও মামলা মোকদ্দমা চলে আসছে। এর মধ্যে যুক্তরাজ্য প্রবাসী হাজেরা বিবির পক্ষে ছোটন মিয়া বাদী হয়ে প্রতিপক্ষের ১০ জনকে আসামি করে জগন্নাথপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রেক্ষিতে গত মঙ্গলবার রাতে জগন্নাথপুর থানা পুলিশ গ্রামে অভিযান চালিয়ে মামলার আসামি উস্তার ছেলে ইকরাম উদ্দিনকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠায়। এরই জের ধরে ঐদিন গভীর রাতে প্রতিপক্ষের লোকজন প্রবাসী হাজেরা বিবির দ্বিতীয় তলা ভবনে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। বাড়ির দেয়াল থেকে শুরু করে থাই গ্লাস, দরজা-জানালা, ঘরের আসবাবপত্রসহ সব কিছু ভাংচুর করা হয়। খবর পেয়ে গত বৃহস্পতিবার জগন্নাথপুর থানার এস আই সাইফুল আলমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। সরজমিনে দেখা যায়, ভবনের এমন কোন অংশ নেই যা ভাংচুর করা হয়নি। অবিচারে ভাংচুর করে বাড়ির কেছি গেইটে নতুন তালা ঝুলিয়ে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এ সময় যুক্তরাজ্য প্রবাসী হাজেরা বিবি জানান, আমার প্রতিবেশি উস্তার উল্লার লোকজন বিভিন্ন অজুহাতে আমার কাছে বড় অংকের চাঁদা দাবি করে। আমি চাঁদা না দেয়ায় তারা দীর্ঘদিন ধরে নানাভাবে নির্যাতন করে আসছে। আমাদের মামলায় তাদের এক আসামিকে পুলিশ ধরার কারণে আমার বাড়ি ভাংচুর করে প্রায় ৩০ লক্ষ টাকার ক্ষতি করেছে। বর্তমানে তাদের ভয়ে আমরা বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র পালিয়ে বেড়াচ্ছি। এছাড়া আমার বাড়িতে থাকা আমার বোনের স্কুল ও কলেজ পড়–য়া ৩ মেয়ে তাদের ভয়ে স্কুল কলেজে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে। তাদের ভয়ে আমরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছি। আমার পরিবারের লোকজনের জানমাল রক্ষাসহ এ ৩ ছাত্রীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

Print Friendly, PDF & Email