জনদাবি না মানলে রবিবার থেকে কঠোর কর্মসূচি: সালাহউদ্দিন

0
209

Salah Uddin Ahmed
ঢাকা: সরকার জনদাবি মেনে অবিলম্বে পদত্যাগ করে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে রবিবার থেকে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণার হুঁশিয়ারি দিয়েছে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট। বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সালাহউদ্দিন আহমেদ এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।
তিনি বলেন, ‘বিগত এক মাসের গণতন্ত্র মুক্তি আন্দোলনে বিএনপিসহ ২০-দলীয় জোটের অনেক নেতা-কর্মীকে ক্রসফায়ারে হত্যা করা হচ্ছে। গুম, খুন ও অপহরণের শিকার হচ্ছে অনেক নেতাকর্মী।’
বিএনপির এই মুখপাত্র অভিযোগ করেন, ‘রাতের অন্ধকারে নিভৃত জনপদ গ্রাম-গ্রামান্তরে হানাদার বাহিনীর কায়দায় নিরীহ জনগণের বসতবাড়ি জ্বালিয়ে ছারখার করে দেয়া হচ্ছে। সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকার নেশায় পোড়া মাটি নীতি অবলম্বন করেছে।’
তিনি বলেন, ‘আমরা পেট্রোল বোমা হামলার মতো হিংস্রতার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানিয়ে আসছি। অথচ আন্দোলনকারীদেরকে বাড়ি থেকে ধরে এনে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে এসব ঘটনার সঙ্গে তাদের সংশ্লিষ্টতা দেখিয়ে সহানুভূতি আদায়ের কূটকৌশল প্রয়োগ করা হচ্ছে।’
সালাহউদ্দিন দাবি করেন, ‘কয়েকটি অনলাইন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত কয়েকটি প্রকৃত ঘটনায় প্রমাণিত হয়েছে, সরকারদলীয় লোকজনই এ সব পেট্রোল বোমাবাজির সঙ্গে জড়িত। সরকার জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক মহলের সহানুভূতির জন্য এই ঘৃন্য ও ন্যাক্কারজনক নীতি গ্রহণ করেছে।’
তিনি দাবি করেন, ‘চৌদ্দগ্রামে পেট্রোল বোমাসহ দুই যুবলীগ নেতা মানিক ও বাবুলকে আটকের পর থানায় নিয়ে যাওয়া হয় এবং সদ্য বিবাহিত স্থানীয় মন্ত্রীর নির্দেশে তাদের ছেড়ে দেয় হয়। জনগণ মনে করে চৌদ্দগ্রাম ট্র্যাজেডির খলনায়ক এই মন্ত্রী ও তার নির্দেশদাতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।’
বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, ‘একইপরিকল্পনার অংশ হিসেবে ছাত্রদল কেন্দ্রীয় কমিটির বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিতের ছাত্র গোলাম কিবরিয়াকে মিছিল থেকে ধরে নিয়ে বোমাবাজ সাজানো হয়েছে। শাহজাহানপুরে কাউসার নামে এক যুবককে পুলিশ গুলি করে তাকে বোমাবাজ সাজিয়েছে।’
‘চৌদ্দগ্রামে চৌদ্দগ্রাম শিবির সভাপতি বোরহান উদ্দিন, শিবির নেতা আবু ইউসুফ, আবু সুফিয়ান ও আবদুল আলীমকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে পা’য়ে গুলি করে তাদেরকে কুমিল্লা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়’ যোগ করেন তিনি।
আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কর্তা ব্যক্তিদের সতর্ক করে সালাহউদ্দিন বলেন, ‘ক্ষমতার পট পরিবর্তন হলে আপনাদের প্রত্যেকটি বেআইনি কর্মকাণ্ডের জন্য জবাবদিহি করতে হবে। অতএব অবৈধ সরকারকে টিকিয়ে রাখার জন্য জনগণের বুকে গুলি চালাবেন না।’
তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, ‘যে কর্মকর্তা একটি লাশের বদলে দুইটি লাশ ফেলার ঘোষনা দিয়েছেন, তার ভবিষ্যৎ পরিণতি কখনোই শুভ হতে পারে না।’
গণআন্দোলনে জনতার বিজয় আসন্ন দাবি করে বিএনপির মুখপাত্র বলেন, ‘সময় থাকতে জনদাবি মেনে নিয়ে অবিলম্বে পদত্যাগ করুন। নির্দলীয় সরকারের অধীনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ব্যবস্থা নিন, তাহলেই আপনার নিরাপদ প্রস্থানের বিষয়টি জনগণ সহানুভুতির সঙ্গে বিবেচনা করবে।’
অন্যথায় আগামী রবিবার থেকে পুনরায় কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা দেয়া হুমকি দিয়ে তিনি বলেন, গণতন্ত্র মুক্তি আন্দোলনের বিজয় অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত চলমান অনির্দিষ্টকালের শান্তিপূর্ণ অবরোধ কর্মসূচি পরবর্তী ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে।

Print Friendly, PDF & Email