তিন মাসের মধ্যে নির্বাচন দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে

0
234

B Chowdhury
ঢাকা: সাবেক প্রেসিডেন্ট ও বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি অধ্যাপক একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেছেন, চলমান সংকট উত্তরণের জনন্য এ সংকটের স্থায়ী সমাধান হওয়া প্রয়োজন। এ জন্য আলাপ-আলোচনার বিকল্প নেই। সে আলোচনার মূলকথা হবে সবার অংশগ্রহণে সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন।
তিনি বলেন, আজকে যা ঘটছে তার পেছনে একমাত্র দায়ী ৫ জানুয়ারির নির্বাচন। প্রধানমন্ত্রীর হৃদয়কে অনেক বড় হতে হবে। বৃহত্তর স্বার্থে তাকেই এগিয়ে আসতে হবে। চলমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনে দুই নেত্রীর সংলাপে বসার দাবিতে শনিবার সকাল ১১টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত দলের কুড়িল বিশ্বরোডের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গণঅনশনরত অবস্থায় তিনি এ বক্তব্য দেন।
কর্মসূচি চলাকালে দুপুর ১২টার দিকে বদরুদ্দোজা চৌধুরী সরকারের উদ্দেশে বলেন, তিন মাসের মধ্যে নির্বাচন দেওয়ার জন্য যা যা করা দরকার, তা করতে হবে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, আপনি ৫৭ জন (বিডিআর কর্মকর্তা) হত্যার সঙ্গে জড়িতদের সঙ্গে ঘরে বসে কথা বলেছেন। পার্বত্য চট্টগ্রামের বিদ্রোহী নেতার সঙ্গে কথা বলেছেন, সমস্যার সমাধান করেছেন। তাহলে তিনবারের প্রধানমন্ত্রীর (খালেদা জিয়া) সঙ্গে কেন কথা বলবেন না?
এর সঙ্গে তিনি যোগ করলেন, বিদেশিদের চাপে যখন কথা বলবেন, তখন তো দেশের মর্যাদা বাড়বে না। সেটা আমাদের জন্য লজ্জার হবে।
পেট্রোল বোমা সম্পর্কে এক প্রশ্নের জবাবে বি. চৌধুরী বলেন, এখন পেট্রোল বোমা কারা মারে আমরা জানি না। দেশের কোথাও দেখেছি- আ.লীগ নেতাদের ঘর থেকে পেট্রোল বোমা উদ্ধার করা হয়েছে। আ.লীগের লোক ধরাও পড়েছে। তার পরও পুলিশ তাদেরকে ছেড়ে দিয়েছে।
তিনি বলেন, দেশের বড় একটি অংশ ক্রসফায়ারে মারা যাচ্ছে। হোয়াট ইজ ক্রসফায়ার! এর পেছনে কারা- তা খতিয়ে দেখতে হবে। একজন বিচারপতিকে প্রধান করে তদন্ত কমিটি করে এদেরকে বিচারের আওতায় আনতে হবে।
সমস্যার দ্রুত সমাধানের দাবি জানান বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি। তিনি বলেন, ক্রসফায়ার, অস্ত্র দিয়ে সমস্যার সমাধান হবে না। এটা গণতন্ত্রের ভাষা নয়।
বিকল্পধারার এ গণঅনশন কর্মসূচিতে সংহতি প্রকাশ করে উপস্থিত হয়েছেন গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। তিনি বিকল্পধারা কার্যালয়ে রক্ষিত সাদা কাপড়ে স্বাক্ষর করেছেন এবং তাতে লিখেছেন, গণতন্ত্রের জন্য শান্তি চাই। সুষ্ঠু নির্বাচন চাই।

Print Friendly, PDF & Email