দক্ষিন সুনামগঞ্জে গৃহবধুর আন্তহত্যা

0
235

নাইম তালুকদার, দক্ষিন সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলার পল্লীতে এক গৃহবধুর মৃত্যু নিয়ে এলাকায় ধূমজালসৃষ্টি হয়েছে। এটা কি আত্মহত্যা না পরিকল্পিত হত্যাকান্ড তা ময়না তদন্তের রিপোর্ট ছাড়া বুঝার কোন উপায় নেই। সোমবার সকালে খবর পেয়ে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার এস আই মোঃ আকিকুল ইসলাম ঘটনাস্থলে গিয়ে সুহেল মিয়ার বসত ঘরের ভেতর থেকে তীরের সাথে গৃহবধুর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেন। গৃহবধুর নাম মরিয়ম বেগম (৩০)। তিনি উপজেলার জয়কলস ইউনিয়নের গাগলী গ্রামের মোঃ সুহেল মিয়ার সহধর্মিনী। তাদের একটি ছেলে ও একটি মেয়ে সন্তান রয়েছে।

প্রায় ৭/৮ বছর পূর্বে একই উপজেলার পূর্ব- পাগলা ইউনিয়নের কাড়ারাই গ্রামের মোঃ ইউনুছ আলীর মেয়ে মরিয়ম বেগমকে বিয়ে করেন জয়কলস ইউনিয়নের গাগলী গ্রামের একলাছুর রহমানের ছেলে মোঃ সুহেল মিয়া। বিয়ের পর তাদের সংসার ভালভাবে চললেও কি কারণে সুস্থ মস্তিস্কের একজন গৃহবধু এভাবে আত্মহত্যা করে এর রহস্য উদঘাটনে ময়না তদন্তের রিপোর্ট ছাড়া বুঝার কোন উপায় নেই ।

স্থানীয় এলাকাবাসী অনেকেই নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, রোববার রাতে পারিবারিক কলহের জের ধরে স্বামী সুহেল মিয়ার সাথে স্ত্রী মরিয়ম বেগমের কথা কাটাকাটি হয়। এরই এক পর্যায়ে স্বামী তার স্ত্রীকে পেটে লাথি মারলে স্ত্রী ঘটনাস্থলেই মারা যান। পরে কৌশলে স্বামী সুহেল মিয়া মরিয়ম বেগমকে ঘরের তীরের সাথে গলায় কাপড় দিয়ে ঝুলিয়ে রাখেন এবং চিৎকার করে বাড়ির আশপাশের লোকজনকে বলতে থাকেন তার স্ত্রী আত্মহত্যা করেছে। এ নিয়ে এলাকার মানুষের মাঝে রয়েছে নানান কৌতুহল। এটা কি আত্মহত্যা না পরিকল্পিত হত্যাকান্ড। এ ব্যাপারে কাড়ারাই গ্রামের গৃহবধূ মরিয়ম বেগমের চাচাতো ভাই আক্তার মিয়ার সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে (ফোন নম্বর-০১৭৩৭২-৭৬০৪৮) তিনি তিনি বলেন আমার চাচাতো বোন মরিয়ম বেগম আত্মহত্যা করে মরেনি। তাকে তার স্বামী কিংবা অন্য কেউ হত্যা করেছে বলে তিনি দাবি করেন।

এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আল আমীন বলেন, গৃহবধুর মৃত্যু এটা কি হত্যা না আত্মহত্যা এই মুহুর্তে ময়না তদন্তের রিপোর্ট ছাড়া বলা যাবে না। এ জন্য গৃহবধুর স্বামী সুহেল মিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। তিনি প্রাথমিক পর্যায়ে এটা আত্মহত্যা বললেও একজন সুস্থ মানুষ যখন পারিবারিক ও মানসিক যন্ত্রনায় আত্মহত্যা করে তাও দন্ডনীয় অপরাধ বলে তিনি জানান।

Print Friendly, PDF & Email