ধানের শীষের প্রার্থীদের প্রচারে বাধা দিচ্ছে শাসকদল: রিজভী

0
59

ঢাকা: বিভিন্ন স্থানে ধানের শীষের প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচারে শাসকদল বাধা দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। বুধবার বিকালে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এই অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, প্রথম ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের কয়েকদিন বাকি। এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ সন্ত্রাসীদের পৈশাচিকতা ও বর্বরোচিত কর্মকাণ্ড আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। আমাদের প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচারে শাসকদলের সন্ত্রাসীরা প্রচণ্ডভাবে বাধা দিচ্ছে। প্রচার মাইক ও অন্যান্য সরঞ্জামাদি ভেঙে ফেলছে। নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসনকে অবহিত করলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না।
এ ব্যাপারে নির্বাচন কমিশনের ‘একপেশে’ ভুমিকার সমালোচনা করে রিজভী বলেন, এই নির্বাচন কমিশন সকল অনাচারকে আশকারা দিয়ে যাচ্ছে। তারা সরকারের অপরাধের সহযোগী হয়ছে। সারাদেশের ইউপি নির্বাচনী এলাকাগুলোতে জনগণের অংশগ্রহণকে পদদলিত করে যারা সব আত্মসাৎ করে নিচ্ছে, তাদের ছিনতাই করা বিজয়কে বৈধ্যতা সনদ দিচ্ছে এই কমিশন।
নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলনে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার টিয়াখালী, রাঙ্গাবালী, খুলনার দীঘলিয়া থানার সেনহাটি, ভোলার চরফ্যাশান উপজেলার এওয়াজপুর ইউনিয়নে ধানের শীষ প্রার্থীদের প্রচার কাজে বাধা ও হামলার ঘটনার চিত্র তুলে ধরেন রিজভী।
তিনি বলেন, পিরোজপুরের নাজিরপুর থানার শেখমাটিয়া ইউনিয়ন পরিষদে গত ২/৩ দিন ধরে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা তাণ্ডব চালাচ্ছে। মঙ্গলবার রাতে ধানের শীষ প্রার্থীর তোহিদুল ইসলামের পক্ষে নির্বাচনী প্রচার চালানোর সময়ে নাজিরপুর থানা ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক শামসুল হক ছোট্টকে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে হত্যা করেছে। ওই হামলায় আরেকজন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। আমরা এ হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানাচ্ছি এবং সন্ত্রাসীদের শাস্তি দাবি করছি।
রিজভী জানান, পিরোজপুর সদর উপজেলা ৫নং টোনা ইউনিয়নের স্থানীয় বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হায়দার আলী হাওলাদারকে মঙ্গলবার দুপুরে থানায় নিয়ে এসে টর্চার করে তার হাত ভেঙে দিয়েছে পুলিশ। তিনি এখন মুমূর্ষু অবস্থায় চিকিৎসাধীন।
ব্রাক্ষণবাড়িয়া পৌরসভা নির্বাচনে স্থানীয় প্রশাসন ও শাসক দলের সন্ত্রাসীরা ধানের শীর্ষ সমর্থকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট কেন্দ্রে না যাওয়ার হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগও করেন রিজভী।
গত ৭ মার্চ সোহরাওয়ার্দি উদ্যানে আওয়ামী লীগের জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, তিনি নবনির্বাচিত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান সম্পর্কে যে মন্তব্য করেছেন, তা যেন শ্বাপদের জিঘাংসার বহিপ্রকাশ। এটি গর্হিত, অনভিপ্রেত, সভ্য রাজনীতি চর্চার চরম লঙ্ঘন। এটি পাগলের প্রলাপ। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য শুনে মনে হয়েছে, তিনি একটি কারাগার ও বধ্যভূমির একচ্ছত্র অধিপতি।
সংবাদ সম্মেলনে দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মুশফিকুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, অর্থনীতি বিষয়ক সম্পাদক আবদুস সালাম, কেন্দ্রীয় নেতা অব. কর্ণেল আবদুল লতিফ, খায়রুল কবীর খোকন, আবদুস সালাম আজাদ, হাবিবুল ইসলাম, আসাদুল করীম শাহিন, আকম মোজাম্মেল হক প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email