পরিচালকই আমাকে বিছানায় নিতে চেয়েছেন: পিয়া বিপাশা

0
280

বিনোদন ডেস্ক: লাক্স তারকা এবং মডেলিংয়ে জনপ্রিয় মুখ পিয়া বিপাশা। তার বিপরীতে ছিলেন ঢাকাই চলচ্চিত্রের কিং খান খ্যাত শাকিব খান এবং জায়েদ খান। পিয়া বিপাশাকে অনৈতিক প্রস্তাব দেওয়ায় তিনি নিজেই ছবি থেকে সরে দাঁড়ালেন। কিন্তু হঠাৎ করেই বেশ কিছু গণমাধ্যমের খবরে আসে রাজনীতি ছবি থেকে বাদ দেয়া হয়েছে পিয়াকে।

বাদ দেয়ার কারণ হিসেবে বলা হয়, চুক্তি অনুযায়ী শর্ত মানেননি পিয়া বিপাশা। তাই তাকে বাদ দেয়া হয়েছে। বুলবুল বিশ্বাসের ‘রাজনীতি’ ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছিলেন ক’মাস আগে। কিন্তু পিয়া জানালেন ভিন্ন কথা। তাকে অনৈতিক প্রস্তাব দেওয়ায় তিনি নিজেই ছবি থেকে সরে দাঁড়ালেন।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে নির্মাতা বুলবুল বিশ্বাস বলছেন, পিয়ার সাথে শর্ত ছিল রাজনীতি ছবিতে অভিনয় করলে ছয় মাসের মধ্যে নতুন ছবিতে কাজ কিংবা চুক্তিবদ্ধ হতে পারবেন না পিয়া। পরবর্তীতে পিয়া শর্ত না মেনে ‘মনের রাজা’ ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। এ জন্য তাকে রাজনীতি ছবি থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে।

কিন্তু পিয়া দাবি করেছেন, তাকে ছবিতে কাজ করার জন্য অনৈতিক প্রস্তাব দেয়া হয়। তাতে তিনি হতাশ হন এবং ছবিটি থেকে সরে দাঁড়ান।

পিয়া বিপাশা এবং রাজনীতি ছবির নির্মাতা দু’জনের দুই রকম মন্তব্যের কারণে পুরো বিষয়টি ধোঁয়াশার মধ্যে রয়ে যায়। তবে রাজনীতি ছবি থেকে বাদ পড়ার প্রকৃত কারণ কী জানতে চাইলে পিয়া বিপাশা তিনি বলেন, ‘ইন্ডাস্ট্রিতে আমি নতুন। ভালো মনে কাজ করতে এসেছি। কিন্তু এর মধ্যে অনেক রাজনীতি ও নোংরামি মিশে আছে- যা আমি বুঝতেই পারিনি।

শুধু আমি কেন, নতুন যারা কাজ করতে আসছে সবাইকে এই বিব্রতকর পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। যারা কাজ করছে এসব মেনেই কাজ করছে। আমি মানতে পারিনি বলেই খারাপ রাজনীতিরই স্বীকার হলাম। আমি কোনো ধরনের রাজনীতির মধ্যে পড়তে রাজি নই।

তিনি বলেন, ক্যারিয়ারের লোভে কোনো অনৈতকি কাজে জড়িয়ে যাবার ইচ্ছে বা মানসিকতা আমার নেই। পরিচালক সরাসরি আমাকে বিছানায় যেতে বলেছেন। যদি শাহরুখ খানের নায়িকা হিসেবেও আমাকে সুযোগ দেয়া হয় তবুও না। এর বেশি কিছু বলতে চাই না। আমি শিল্পী মানুষ, নিজেকে শিল্প চর্চায় যুক্ত রাখতে চাই। কিন্তু নোংরামী নয়। তাই ছবিটি থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছি।

পিয়া এও বলেন, আমরা যারা নিউ কামার তারা প্রত্যেকেই ভালো কাজ করতে চাই। কাজের সুন্দর পরিবেশ চাই, ভালো গল্প চাই। অভিনয় করে বাংলাদেশের দর্শকের কাছে একটা জায়গা তৈরি করে নিতে চাই। ধারণা ছিল, চলচ্চিত্র শিগগির একটা জায়গায় দাঁড়াবে। কিন্তু বাইরে থেকে দেখার সাথে ভেতরের দেখার অনেক পার্থক্য। এখানে এমনসব মানুষ নোংরামীর সাথে জড়িত যা বিশ্বাসও করা যায় না। এখানে এমন সব রাজনীতি হয় যা মুখেও আনতে ঘেন্না লাগে। জানি না নিজের ক্যারিয়ার কতদূর নিয়ে যেতে পারবো, তবে আমি যোগ্যতা আর মেধার উপর বিশ্বাসী। একদিন সুদিন ফিরবেই।

Print Friendly, PDF & Email