পুতিনের কড়া সমালোচনায় এরদোগান

0
115

আঙ্কারা: তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান তার দেশকে ইসলামীকরণ করছেন বলে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন যে মন্তব্য করেছেন তার কড়া জবাব দিয়েছেন এরদোগান। তিনি বলেন, ‘আপনি কিভাবে এ কথা বলার স্পর্ধা দেখালেন? তুরস্কের ৯৯ ভাগ মানুষই তো মুসলমান।’ আঙ্কারায় তুর্কি প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে এরদোগান আরো বলেন, ইসলামিক স্টেট ইসলাম ও মুসলিমদের ভীষণ ক্ষতি করেছে। তিনি সিরীয় স্বৈরশাসক বাশার আল আসাদের দিকে ইঙ্গিত করে বলেন, ‘সাংগঠনিক সন্ত্রাস আর রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের’ মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই। আসাদ সিরিয়াকে একটি জ্বলন্ত আগ্নেয়গিরিতে পরিণত করলেও তাকে রক্ষায় সব প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে রাশিয়া। তুরস্ক আইএসের কাছ থেকে তেল কিনছে বলে রাশিয়া ও ইরান যে অভিযোগ করছে তা নাকচ করে দিয়েছেন এরদোগান। তিনি বলেন, আসাদই আইএসের কাছ থেকে তেল কিনছে। তুরস্ক যে সব দেশের কাছ থেকে তেল কিনে থাকে (ইরান, রাশিয়া ও আজারবাইজান) তা সবার জানা বলে মন্তব্য করেন এরদোগান।

এরদোগান বলেন, আপনাদের লজ্জা হওয়া উচিত। যারা দাবি করে যে আমরা দায়েশের (আইএস) কাছ থেকে তেল কিনি তা প্রমাণ করার দায়িত্বও তাদেরই। তা যদি তোমরা না পার তবে আপনারা নিন্দুক। আইএসআইএল যে তেল তোলে তা আসাদের কাছে বিক্রি করে। আপনারা আসাদের সাথে কথা বলুন, যাকে আপনারা সমর্থন দিচ্ছেন। মঙ্গলবার রাশিয়ার জঙ্গিবিমান ভূপাতিত করার পর আঙ্কারা ও মস্কোর মধ্যে বাকযুদ্ধ চলার মধ্যেই এরদোগান এ সব কথা বলেন।

এরদোগান বলেন, রাশিয়ার সাথে তুরস্কের সম্পর্ক বহুমুখী এবং অত্যন্ত মজবুত। কাজেই সীমান্ত লঙ্ঘিত না হলে বিমানটি ভূপাতিত করার কোনো প্রয়োজন ছিল না। তবে তিনি সতর্ক করে দেন যে আবার সীমান্ত লঙ্ঘন করা হলে তুরস্ক তারও জবাব দিতে বাধ্য। রাশিয়া বিমান ভূপাতিত করার ঘটনা ক্ষমাপ্রার্থনার আহ্বান জানালেও তুরস্ক তা নাকচ করে দিয়েছে এবং বলেছে, ‘যে ঘটনায় আমরা সঠিক’ তাতে ক্ষমা প্রার্থনার কিছু নেই। তবে তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু তার রাশিয়ান কাউন্টারপার্ট সার্গেই ল্যাভরভকে টেলিফোন করে এ ঘটনায় ‘সরি’ বলেছেন বলে জানিয়েছেন। এরদোগান বলেন, শুরু থেকেই তুরস্ক আইএসের বিরুদ্ধে সুস্পষ্ট অবস্থান নিয়েছে। তিনি রাশিয়ার সমালোচনা করে বলেন, আইএস দমনের নামে তারা সিরিয়ার মধ্যপন্থী বিরোধী দলের ওপর বিমান হামলা চালাচ্ছে এবং সিরিয়ার লাটকিয়ায় তুর্কি বংশোদ্ভূত তুর্কিম্যানদের হত্যা করছে। সূত্র: আলজাজিরা

Print Friendly, PDF & Email