বিদেশী নিহতের ঘটনায় আতঙ্ক: কাজ বন্ধ করে অফিসেই থাকছেন ১২ বিদেশী

0
229

সাতক্ষীরা: নিরাপত্তার কারণে সাতক্ষীরায় ১২ জন বিদেশী নাগরিকের চলাফেরায় বিধিনিষেধ আরোপ করেছে স্থানীয় প্রশাসন। অগ্রগতি সংস্থার হয়ে ১২ জন বিদেশি ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে জেলার বিভিন্ন গ্রামে কাজ করছিল। সংস্থাটির পক্ষ থেকে বিদেশীদের নিরাপত্তা চেয়ে প্রশাসনকে জানালে তাদের চলাফেরায় বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। বর্তমানে সংস্থার কার্যক্রম গুটিয়ে নিয়ে ওই বিদেশীরা তাদের কার্যালয়ে পুলিশ হেফাজতে অবস্থান করছেন। অগ্রগতি সংস্থার পরিচালক আব্দুস সবুর জানান, ঢাকার ভিএসও আন্তজাতিক একটি বে-সরকারি সংস্থার কাজ করতে ২৩ সেপ্টেম্বর সাতক্ষীরায় আসেন ১০ জন ব্রিটেন, একজন আয়ারল্যান্ড ও একজন পর্তুগালের নাগরিক। তাদেরকে অগ্রগতি সংন্থা সহযোগিতা করছিল কাজ করার জন্য। ১২ বিদেশী সাতক্ষীরার এসে সাধারণ মানুষের বাড়িতে থেকে তাদের জীবনমান ও সমস্য নিয়ে সরেজমিনে কাজ করেছিল। তারা লাবসা, মাগুরা, কাপাসডাঙ্গা ও হরিনখোলা গ্রামে বিভিন্ন মানুষের বাড়িতে ৩-৪ দিন থেকে কাজ করে আসছিল। ওইসব বাড়িতে থাকা ও খাওয়ার জন্য পরিবার প্রতি ১০ হাজার করে খরচ দেয়া হয়।

তিনি জানান, গত দুই দিনে ঢাকায় এক বিদেশী নাগরিককে হত্যার পর ১২ বিদেশেীর মধ্যে আতঙ্ক দেখা দেয়। তাদের উপর হামলা হতে পারে এমন আশঙ্কায় গতকাল তাদেরকে কাজ বন্ধ করে তাদের অফিসে রাখা হয়েছে। এ বিষয়টি তিনি গোয়েন্দা পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থাকে লিখিতভাবে নিরাপত্তার বিষয়টি তিনি জানিয়েছেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মীর মোদাচ্ছের আলি জানান, বর্তমানে সাতক্ষীরায় ১৯ জন বিদেশী অবস্থান করছেন। তাদের নিরাপত্তার কোনো অভাব নেই। তারা নিরাপদে চলাফেরা করতে পারবেন। পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যরা তাদের ওপর নজরে রাখছে। তারা কোন এলাকায় যাচ্ছে ও কি কাজ করছে বা কোথায় যাচ্ছে সে বিষয়টি পুলিশ ও গোয়েন্দারা দেখাশুনা করছেন। এছাড়া বিদেশী নাগরিক কোনো এলাকায় গেলে তা পুলিশকে জানানোর জন্য বলা হচ্ছে। এক কথায় জেলায় কোনো হুমকি নেই। সাতক্ষীরার অগ্রগতি সংস্থার হয়ে ১২ জন বিদেশি ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে বিভিন্ন গ্রামে কাজ করছিল। ওই সংস্থার পক্ষ থেকে বিদেশীদের নিরাপত্তা চেয়ে প্রশাসনকে জানালে তাদের চলাফেরায় বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। বর্তমানে ওই বিদেশীরা তাদের কার্যালয়ে পুলিশ হেফাজতে অবস্থান করছেন।

Print Friendly, PDF & Email