বিশ্ববাসীকে জানিয়ে দেবো বর্তমান অবৈধ সরকারের আচরণ কেমন

0
154

B. Chowdhury 01
ঢাকা: আমি বিশ্ববাসীকে জানিয়ে দেবো বাংলাদেশে কী হচ্ছে? তথাকথিত সংসদীয় গণতন্ত্রের বর্তমান অবৈধ সরকারের আচরণ কেমন বলেছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বিকল্প ধারার সভাপতি অধ্যাপক এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী। রোববার দুপুরে গুলশানে নিজ রাজনৈতিক কার্যালয়ে অবরুদ্ধ বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে পুলিশি বাধার মুখে দেখা করতে না পেরে ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি একথা বলেন।
বি চৌধুরী বলেন, আমি রাষ্ট্রের একজন সিনিয়র সিটিজেন। সাবেক রাষ্ট্রপতি। আমাকে দেখা করতে দেয়া হয়নি। পুলিশের এহেন আচরণ ও দেশের একজন বিরোধী দলীয় নেত্রীকে এভাবে অবরুদ্ধ করে রাখা গণতন্ত্রের জন্য অশুভ সংকেত বলে আমি মনে করি।
৫ জানুয়ারিকে গণতন্ত্র হত্যা দিবস হিসেবে বিএনপির কর্মসূচির প্রতি পূর্ণ সমর্থনও জানান বিকল্পধারার সভাপতি অধ্যাপক বি চৌধুরী।
জনগনের উদ্দেশ্যে আহ্বান রেখে তিনি বলেন,দেশবাসীর প্রতি আহ্বান রাখব, আপনরা এই অগণতান্ত্রিক অবৈধ সরকারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান।
জানা যায়, গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের মোড়ে সাবেক রাষ্ট্রপতির গাড়িবহর এসে পৌঁছলে পুলিশ প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। সাবেক রাষ্ট্রপতির পরিচয় দেয়ার পরও পুলিশ ব্যারিকেড তুলে নেয়নি। পরে বি চৌধুরী নিজের লাঠিতে ভর দিয়ে গাড়ি থেকে নেমে পায়ে হেটে বিএনপি নেত্রীর কার্যালয়ের দিকে অগ্রসর হন। কয়েক গজ যাওয়ার পর আবারো পুলিশ তার গতিরোধ করে। এ সময়ে বি চৌধুরীর সঙ্গে বিকল্পধারা মহাসচিব আবদুল মান্নান ছিলেন।
পুলিশের কাছে সাবেক রাষ্ট্রপতি জানতে চান কেন তাকে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে দেয়া হবে না। এসময় একজন কনস্টেবল বলেন, আমাদের নির্দেশ আছে, এখানে কেউ যেতে পারবেন না। আপনি আমাদের অফিসারের সঙ্গে দেখা করুন।
বি চৌধুরী বলেন, আপনার অফিসারকে ডাকুন।
কনস্টেবল বলেন, উনি পেছনে আছেন, আপনি সেখানে যান।
এ সময়ে রাগান্বিত কণ্ঠে বি চৌধুরী বলেন, আমি সাবেক রাষ্ট্রপতি। আপনি কী বলছেন? আপনি আমার নাতনির বয়সের। একজন সিনিয়র সিটিজেনকে এভাবে বলা যায় না। আমি কেন অফিসারের কাছে যাবো? তাকে আসতে বলুন।
বি চৌধুরী পুলিশের এহেন আচরণে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, গণতান্ত্রিক দেশে এভাবে পুলিশ বাহিনী আচরণ করতে পারে না। এটা শুভ নয়।
সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, বিরোধী দলীয় নেতা গতকাল থেকে অবরুদ্ধ হয়ে আছে জেনে আমি তার সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলাম। এভাবে অবরুদ্ধ করে রাখা গণতন্ত্রের জন্য লজ্জাজনক। আমি সরকার ও পুলিশের এহেন আচরণের ধিক্কার জানাই, প্রতিবাদ জানাই।
তিনি বলেন, গণতন্ত্রের কথা বললে অবরুদ্ধ করে রাখতে হবে। কথা বলা যাবে না। এটা চলতে পারে না। বেগম খালেদা জিয়া বিরোধী দলের নেতা। তাকে এভাবে অবরুদ্ধ করে রাখার মধ্য দিয়ে সরকারের আসল চেহারা উন্মোচিত হয়েছে।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,আজকে যেভাবে সরকার বিরোধী দলের নেত্রীকে অবরুদ্ধ করে রেখেছে।এটা যেমন আমি প্রতিবাদ জানাতে এসেছি। যদি আগামীতে দাবার গুটি উল্টে যায়, ওই সময়েও এরকম আচরণ হলে আমি প্রতিবাদ জানাবো।

Print Friendly, PDF & Email