মানবাধিকার সংস্থাকে পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান বিএনপির

0
133

bnp-logo-up8
ঢাকা: দেশে চলমান পরিস্থিতিতে জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থাকে তাদের যথাযথ ন্যায়সঙ্গত পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য আহ্বান জানিয়েছে বিএনপি। বুধবার বিকেলে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে বিএনপির যুগ্মমহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদ এ আহ্বান জানান।
বিৃবতিতে সালাহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আবাসস্থল গুলশান কার্যালয়ে অবিলম্বে টেলিফোন, ফ্যাক্স, ইন্টারনেট, ব্রডব্যান্ড ও ক্যাবল সংযোগসহ সকল যোগাযোগ ব্যবস্থা পূণ:স্থাপনের ব্যবস্থা নেয়ার জন্য আমরা আহবান জানিয়েছিলাম, কিন্তু বোবা সরকার তাতে কর্ণপাত করেনি।
তিনি বলেন, আমরা জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক সব মানবাধিকার সংস্থা, সংগঠন ও মানবাধিকার কর্মীদেরকে গুলশান কার্যালয়ের পরিস্থিতি পরিদর্শন পর্যবেক্ষণ ও অনুধাবন করে বিশ্বের কাছে তা তুলে ধরার আহবান জানাই। জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থাকে তাদের যথাযথ ন্যায়সঙ্গত পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য আবেদন জানাচ্ছি।
বিএনপি নেতা সালাহ উদ্দিন বলেন, প্রচার মাধ্যম নিয়ন্ত্রণ করে, কুক্ষিগত বিচার ব্যবস্থার মাধ্যমে শেখ হাসিনা তার অবৈধ শাসন চালিয়ে যাওয়ার যে সংকল্প নিয়েছে তাতে এই রাষ্ট্র গঠনে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ও আপামর জনসাধারণের সকল স্বপ্ন ধূলিস্যাৎ হতে বসেছে।
সালাহ উদ্দিন অহমেদ বলেন, পুলিশী শাসন ও নিয়ন্ত্রিত বিচার ব্যবস্থার কল্যানে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদসহ সকল সিনিয়র নেতৃবৃন্দকে দিনের পর দিন মিথ্যা মামলায় রিমান্ডে এনে মানসিক নির্যাতন করা হচ্ছে। এসব বেআইনী রিমান্ড বন্ধ করে তাদেরকে নি:শত মুক্তি প্রদানের দাবি জানাচ্ছি।
৫ জানুয়ারিকে গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ দাবি করে ওই দিন রাজধানীতে সমাবেশের ঘোষণা দিয়ে গুলশানে তার কার্যালয়ে যাওয়ার পর সেখানে কার্যত অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।
গত ৫ জানুয়ারি ‘অবরুদ্ধ’ খালেদা জিয়া গুলশান-২ এর ৮৬ নম্বর সড়কের ওই কার্যালয় থেকে ৬ জানুয়ারি থেকে সারাদেশে লাগাতার অবরোধের ডাক দেন। এরই মাঝে কয়েক দফা হরতালেরও ঘোষণা দেওয়া হয় বিএনপির পক্ষ থেকে।
সারাদেশে শুরু হতে যাওয়া এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষাকে সামনে রেখে গত শুক্রবার ৩০ জানুয়ারি ১ ফেব্রুয়ারি থেকে দেশজুড়ে হরতালের ঘোষণা দেয় বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০দল।
ওইদিন গভীর রাতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়। পরে শনিবার ৩১ জানুয়ারি ওই কার্যালয়ের ইন্টারনেট ও ক্যাবল সংযোগও বিছিন্ন করা হয়। এরপর শনিবার রাতে বিদ্যুৎ সংযোগ পুনঃস্থাপন করে কর্তৃপক্ষ।
বিএনপির অভিযোগ, ওই কার্যালয়ের ইন্টারনেট ও ক্যাবল সংযোগ এখন পুনঃস্থাপন করা হয়নি। এ ঘটনায় সরকারকে দায়ী করে দলটি। তবে সরকার এ দাবি প্রত্যাখান করেছে।

Print Friendly, PDF & Email