মার্কিন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের রিপোর্ট সাংঘার্ষিক: বিএনপি

0
183

স্টাফ রিপোর্টার: সরকারের জনপ্রিয়তা বেড়েছে বলে মার্কিন গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল রিপাবলিকান ইনস্টিটিউটের (আইআরআই) জরিপ নিয়ে প্রশ্ন তুলে বিএনপি বলেছে, এই রিপোর্ট সাংঘার্ষিক। বাস্তবতার সাথে এর কোনো মিল নেই। শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির আন্তর্জাতিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, এই জরিপে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ও দ্রুত নির্বাচনের পক্ষে রায় এসেছে। আবার সরকারের জনপ্রিয়তা বেড়েছে বলেও বলা হয়েছে। আমরা বলতে চাই, যদি মানুষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার চায়, তাহলে যে সরকার তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করেছে তার জনপ্রিয়তা বাড়ে কিভাবে? একই সঙ্গে দ্রুত নির্বাচন প্রয়োজন বলে জরিপে উঠে এসেছে। তার মানে আগের নির্বাচন সঠিক হয়নি। সুতরাং তাদের জরিপ সাংঘর্ষিক বলে মন্তব্য করেন তিনি। দ্রুত একটি অবাধ নির্বাচনের মাধ্যমে সরকারকে তাদের জনপ্রিয়তার পরীক্ষা দেওয়ারও আহ্বান জানান আসাদুজ্জামান রিপন।

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন হয়। এসময় বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে জিয়াউর রহমান খান, নিতাই রায় চৌধুরী, সানাউল্লাহ মিয়া, রেহানা আক্তার রানু, আবু সাঈদ খান খোকন, রফিক শিকদার, জেড মর্তুজা চৌধুরী তুলা, নূরুল ইসলাম খান নাসিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের প্রতি মানুষের সমর্থন বাড়ছে- গত বুধবার প্রকাশিত ওই মতামত জরিপে এই চিত্র উঠে আসে। যা পরিচালনা করে নিয়েলসন বাংলাদেশ। তার প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে জরিপের ফলাফলকে বিভ্রান্তিকর মন্তব্য করে দলের আন্তর্জাতিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, একদিকে তারা বলছেন যে অধিকাংশ মানুষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থায় নির্বাচন চায়, অধিকাংশ মানুষ দ্রুত নির্বাচন চায়।

আবার অন্যদিকে সরকারের জনপ্রিয়তা বেড়েছে বলে তারা বলেছেন। এই চিত্রটি প্রমাণ করে, এই জরিপটি সাংঘর্ষিক। নিয়েলসন বাংলাদেশের চালানো তিন বছর আগের একটি জরিপের সঙ্গে বর্তমান জরিপের ফল না মেলার বিষয়টিও তুলে ধরেন বিএনপি নেতা। নিয়েলসন বাংলাদেশ ২০১২ সালে ডেইলি স্টার ও প্রথম আলোতে একটি জরিপ করেছিল। সেই জরিপে একই প্রতিষ্ঠান বলেছিল, এখন নির্বাচন হলে বিএনপি সরকার গঠন করবে।

এই জরিপের ফল বিএনপির নেতা-কর্মীদের মধ্যে কোনো প্রভাব ফেলবে না জানিয়ে আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, এই জরিপের ফলাফলে দলে কোনো নেতিবাচক প্রভাব পড়ার অবকাশ নেই। আমাদের নেতা-কর্মী-সমর্থক দলের রাজনীতির স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। তাদের মধ্যে কোনো হতাশা নেই। আওয়ামী লীগ সরকারের জনপ্রিয়তা বাড়ার কোনো কারণ খুঁজে পাচ্ছেন না বিএনপির মুখপাত্র।

তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি, শিক্ষক নির্যাতন, নারী নির্যাতন বৃদ্ধি, দ্রব্যমূল্যসহ নানা সূচক বরং সরকারের অজনপ্রিয়তাই তুলে ধরে। একটা পরিস্থিতিতে কীভাবে একটি সরকার ও সরকার প্রধানের জনপ্রিয়তা বাড়ে তা আমাদের কাছে বোধগম্য নয়। সরকার যদি জরিপের ফলাফল মেনে নেয়, তাহলে জনপ্রিয়তা যাচাইয়ে নির্বাচন দিতে তাদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

Print Friendly, PDF & Email