যুব জমিয়তের সদস্য সম্মেলন ও কাউন্সিল অধিবেশন শনিবার

0
144

সিলেট: প্রাচিনতম রাজনৈতিক কাফেলা জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের অঙ্গ সংগঠন যুব জমিয়ত সিলেট মহানগরীর সদস্য সম্মেলন ও কাউন্সিল অধিবেশন শনিবার নগরীর শহিদ সুলেমান হলে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সম্মেলনকে সামনে রেখে সাংগঠনিক কার্যক্রম চলছে। দিনে রাতে চালিয়ে যাচ্ছেন সাংগঠনিক কার্যক্রম ও দাওয়াতি অভিযান। যুব জমিয়তের এই সম্মেলন সম্পর্কে জানতে চাইলে মহানগর যুব জমিয়তের আহবায়ক মাওলানা যুবায়ের আল মাহমুদ বলেন, দীর্ঘ ১১ বছর পর মহানগর যুব জমিয়তের পূর্ণাঙ্গ কমিটি হতে যাচ্ছে। সাংগঠনিক নিয়মানুসারে ২ বছর অন্তর কমিটি হওয়ার কথা থাকলেও তা সম্ভব হয়নি সাবেক কমিটির দায়িত্বশীলদের নিষ্কীয়তার ফলে। ২০০৩ সালে গণ সংগঠনের মুরব্বিরা মাওলানা আমজাদ হোসাইনকে সভাপতি করে একটি কমিটি করে দিয়েছিলেন। কিন্তু তারা মাঠ পর্যায়ে কোনো কাজ করেন নি।
তিনি আরো বলেন, আমাদের সাংগঠনিক মুরব্বিরা ২০১২ সালের ৭ই অক্টোবর আমাকে গণ সংগঠনের যুব বিষয়ক সম্পাদক করলে আমি ওই বছরের ১৪ ডিসেম্বর আহবায়ক কমিটি গঠন করতে সক্ষম হয়েছি। এবং সাংগঠনিক কার্যক্রম চাঙ্গা করার মানসে ইতোমধ্যে মহানগরীর ২৭ টি ওয়ার্ডের আহবায়ক কমিটিও গঠন করে নিয়েছি। শনিবারের সম্মেলনে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, গণ সংগঠনের মুরব্বিদের ফয়সালা অনুযায়ী মাশওয়ারা তথা শুরা ভিত্তিক কমিটি গঠন করা হবে। যদি ব্যালটের মাধ্যমে কমিটি গঠনের প্রয়োজন দেখা দেয় তবে প্রতি ওয়ার্ড থেকে ৫জন করে সদস্যের ভোট প্রদানের মাধ্যমে কমিটি হতে পারে। কমিটিকে সামনে রেখে কোনো পদে কেউ লবিং করছেন কীনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, লবিং করার প্রশ্নেই আসে না। আমরা দেওবন্দের অনুসারী। আমাদের আকাবীররা কখনোই পদলোভী ছিলেন না। যোগ্যতা যাচাই করে যার দ্বারা দেশ জাতি ও মুসলিম উম্মাহর উপকার হবে তাকে সেই পদ দ্বারা অলংকৃত করা হবে। এব্যাপারে ছাত্র জমিয়ত শাহপরাণ থানার যুগ্ম সম্পাদক আবদুল মুহিত খান মুরাদ বলেন, যবি জমিয়তের শনিবারের সম্মেলনের দাওয়াত ইতোমধ্যে সবার কাছে পৌছে গেছে। যুব জমিয়তের বর্তমান আহবায়ক কমিটি যে গতিতে কাজ করছে এভাবে যদি ছাত্র জমিয়ত কাজ করে তবে বাংলাদেশের মধ্যে প্রথম সারির সংগঠনে রুপ নিতে পারবে বলে আমি আশাবাদী। ছাত্র জমিয়তের আরো এক নেতা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তিনি বলেন, আমরা ছাত্র সংগঠনের রাজনীতির সাথে জড়িত। আমাদের ছাত্র সংগঠনের অনেক পদ জোরে রয়েছেন অছাত্ররা। অর্থাৎ যারা মাদরাসার সর্ব্বোচ্চ ক্লাস টাইটেল উত্তীর্ণ হওয়া সত্ত্বেও ছাড়ছেন না ছাত্র রাজনীতি। যদি গণ সংগঠনের দায়িত্বশীলরা এদেরকে বাছাই করে যুব জমিয়তে নিয়ে যান, তবে অনেক মেধাবী-প্রতিভাবান ছাত্ররা এ স্থানগুলোতে আসতে পারবে এবং এর দ্বারা ছাত্র জমিয়তের কার্যক্রম আরো বেগবান হবে।

Print Friendly, PDF & Email