রোনালদোর মুকুট কি মেসির হবে?

0
345

সম্মানটাকে একেবারে ব্যক্তিগত সম্পত্তি বানিয়ে ফেলেছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। গত ছয় মৌসুম ধরেই নিজেকে চ্যাম্পিয়নস লিগের সেরা গোলদাতা হিসেবে বানিয়ে বসে আছেন। শুরুতে হয়তো কেউ এগিয়ে থাকলেও থাকতে পারেন, কিন্তু শেষ পর্যন্ত চ্যাম্পিয়নস লিগের সেরা গোলদাতা হিসেবে পর্তুগিজ ফরোয়ার্ডের নামটাই লেখা হয়। এবার কি সেটা হবে?

সোমবার পর্যন্ত একটু ঝুঁকি নিয়েও উত্তরটা না বলে দেওয়া যেত। শেষ ষোলোর প্রথম লেগ খেলার পরও রোনালদোর নামের পাশে মাত্র ১ গোল। ওদিকে বায়ার্ন মিউনিখের রবার্ট লেভানডফস্কির নামের পাশে ৮ গোল। মেসিও ৬ গোল নিয়ে ভালো গতিতেই ছুটছেন। ৯ মৌসুম রিয়াল মাদ্রিদে কাটানো রোনালদোর জুভেন্টাসে যোগদান তখনো ভুল মনে হচ্ছিল।

কিন্তু চ্যাম্পিয়নস লিগের সর্বোচ্চ গোলদাতা ও গোলের সব ধরনের রেকর্ডভাঙা রোনালদোর বিপক্ষে যে বাজি ধরতে নেই। ২-০ ব্যবধানে দল পিছিয়ে আছে। অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের মতো দলের রক্ষণ ভেঙে ৩ ব্যবধানে জিততে হবে জুভেন্টাসকে। এমন সময়ই যে রোনালদোর জেগে ওঠার জন্য মোক্ষম। রোনালদোর অষ্টম চ্যাম্পিয়নস লিগের হ্যাটট্রিকে অ্যাটলেটিকোর রক্ষণকে দুমড়েমুচড়ে কোয়ার্টার ফাইনালে চলে গেছে জুভেন্টাস। সেই সঙ্গে আরও একবার প্রমাণ হয়ে গেছে; প্রসঙ্গ যখন চ্যাম্পিয়নস লিগ, রোনালদোর সামর্থ্য নিয়ে প্রশ্ন তোলাটা বিপজ্জনক।

রোনালদোর এমন জাদুকরী পারফরম্যান্সের পর মেসিও বসে থাকেন কীভাবে? গতকাল নিজে দুই গোল করেছেন, করিয়েছেন আরও দুই গোল। এতেই সর্বোচ্চ গোলের তালিকায় লেভানডফস্কিকে টপকে গেছেন মেসি (গোল করিয়েছেন বলে)। আর লেভানডফস্কির চ্যাম্পিয়নস লিগ যাত্রা এবার শেষ হয়ে গেছে কাল। তাই মেসির সামনে বেশ ভালো সুযোগ ২০১৫ সালের পর শীর্ষ গোলদাতা হওয়ার। চ্যাম্পিয়নস লিগ বলেই রোনালদোর নামটা আগে বলা হলো, না হলে কাগজে–কলমে মেসির সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নাম আসার কথা ছিল দুসান তাদিচ ও মুসা মারেগার। বড় বড় সব নামকে হটিয়ে ৬ গোল করে দলকে কোয়ার্টার ফাইনালে নিয়ে এসেছেন এ দুজন। আয়াক্স ও এফসি পোর্তো যদি কোয়ার্টার ফাইনাল পেরোতে পারে, তবে এ দুজনের নামের পাশে গোলসংখ্যাও বাড়বে নিশ্চিত।

৫ গোল নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আছেন হ্যারি কেইন, সার্জিও আগুয়েরো ও পাওলো দিবালা। কোয়ার্টার ফাইনালে টটেনহামের মূল ভরসা কেইনই। তবে আগুয়েরো ও দিবালার ক্ষেত্রে সেটা বলার জো নেই। আগুয়েরোর দলে গোল করার লোক এতই বেশি যে কোয়ার্টার ফাইনালে দল জিতলেও সেটা যে আগুয়েরোর পা থেকে আসবে সে নিশ্চয়তা নেই। দিবালার দলে রোনালদোর উপস্থিতিও সুযোগটা কমিয়ে দিচ্ছে।

আগামীকালই কোয়ার্টার ফাইনালের প্রতিপক্ষ কারা, তা জানা যাবে। তখনই সবাই জানতে পারবেন, শীর্ষ গোলদাতা হওয়ার পথে কে কার পথের কাঁটা হচ্ছেন। মেসির দুর্দান্ত ফর্ম ও রোনালদোর ফর্মে ফেরা দুর্দান্ত এক লড়াইয়ের আশা দিচ্ছে। এর সঙ্গে দুটি তথ্য বাড়িয়ে দিচ্ছে সে আশা, ২০১৬/১৭ মৌসুমে কোয়ার্টার ফাইনালের আগে ২ গোল করা রোনালদো প্রতিযোগিতা শেষ করেছিলেন ১২ গোল নিয়ে। আর ২০১৩ সালের পর থেকে গত ৫ মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে গোল পাচ্ছেন না মেসি! ৪ গোলে পিছিয়ে থাকা রোনালদোকে তাই পিছিয়ে রাখা যাচ্ছে না।

Print Friendly, PDF & Email