শ্রীমঙ্গলে মানবতাবিরোধী অপরাধীদের নামের তালিকা ট্রাইব্যুনালে

0
306

ঢাকা: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে একাত্তর সালে মুক্তিযোদ্ধের সময় পাকিস্তানি বাহীনিকে সহযোগিতা, গণহত্যা, ধর্ষণ, লুন্টন, অগ্নিসংযোগ’সহ মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িতদের তালিকা আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের তদন্ত ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার কাছে পাঠানো হয়েছে। সম্প্রতি মৌলভীবাজারের জেলা প্রসাশকের মাধ্যমে শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রশাসন থেকে তদন্ত সংস্থায় পাঠানো এ নামের তালিকায় উপজেলার আট রাজাকার ছাড়াও দুই আলবদর এবং নয় আল শামস এর নাম রয়েছে। এদের মধ্যে এক রাজাকার, এক আলবদর ও চারজন আলসামস এরই মধ্যে মারা গেছেন।

তালিকা অনুযায়ী আট রাজাকাররা হলেন, উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের কান্দিপাড়া গ্রামের মেন্দি মিয়া, ভুনবীর গ্রামের মৌলাদ হোসেন, আলীসারকুল গ্রামের মো. ফুল মিয়া, লৈয়ারকুল গ্রামের মাহাতাব মিয়া ও রাজপাড়া গ্রামের মৃত বাদশা মিয়া, সিন্দুরখান ইউনিয়নের খারিজ্জমা গ্রামের রুহুল আমীন ও আ. গফুর এবং শ্রীমঙ্গল পৌর এলাকার কালিঘাট সড়কের দুদু মিয়া ড্রাইভার।

দুই আলবদর হলেন- ভুনবীর ইউনিয়নের আলীসারকুল গ্রামের মৃত হরমুজ মিয়া ও বাবুল মিয়া।

নয় আল শামসরা হলেন- ভুনবীর ইউনিয়নের লইয়ারকুল গ্রামের জৈন উল্লা, পাত্রিকুল গ্রামের মৃত আব্দুল মিয়া, আলীসারকুল গ্রামের ফিরোজ মিয়া (ডকলু), বাদআলীসা গ্রামের মৃত শায়েস্তা মিয়া ও মৃত ইসরাইল মিয়া, সিন্দুরখান ইউনিয়নের হুগলিয়া গ্রামের রশিদ মিয়া ও আসলম উল্লাহ, জানাউড়ার মৃত চান মিয়া ও ফিরোজ মিয়া।

শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে স্বারক নং : ৯৩১.০০০,০১০,০২,০০,০০৯, ২০১৪/৫৪৩ তাং-১৪.৭.২০১৫ মূলে এ তালিকাটি পাঠানো হয়।

উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালিন সময়ে শ্রীমঙ্গল উপজেলায় বিজিবি সেক্টর হেড কোয়াটার ক্যাম্প, ভাড়াউড়া, জয়বাংলা, লাখাইছড়া বাঁশবাড়ি, ও পূর্বাশা বধ্যভূমি এবং সবুজবাগ গণ কবরে পাকহানাদার বাহীনি রাজাকার, আলবদর ও আল শামস এর সহযোগীতায় গণহত্যা চালায়।

শহরের ওয়াপদা ভবনে স্থাপিত পাক আর্মির ক্যাস্পে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে নারীদের ধরে এনে নির্যাতন করা হতো। এছাড়াও উপজেলার মির্জাপুর বাজার, ভিমসী বাজার, ধোবারহাট বাজার, ভৈবরগঞ্জ বাজার ও শ্রীমঙ্গল বাজারে অগ্নি সংযোগ ও ব্যাপক লুটপাট চালানো হয়েছিল।

Print Friendly, PDF & Email