স্বাভাবিক রাজনীতির গ্যারান্টি চায় বিএনপি

0
199

ঢাকা: সরকারের কাছে স্বাভাবিকভাবে রাজনৈতিক কর্মকা- পরিচালনার ‘গ্যারান্টি’ চেয়েছে বিএনপি। একই সঙ্গে একটি অবাধ নির্বাচন ও গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে শক্তিশালীহরণসহ সব ইস্যুতে সংলাপে বসতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে দলটি। শনিবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই আহ্বান জানান বিএনপির মুখপাত্র ড. আসাদুজ্জামান রিপন।

তিনি বলেন, সরকারের তরফ থেকে বলা হচ্ছে, বিএনপির স্বাভাবিক কর্মকা- করতে পারবে। আমরা সরকারের কাছ থেকে বিএনপির স্বাভাবিক রাজনীতি করার গ্যারান্টি চাই। এর পূর্বশর্ত হিসেবে কারাগারে থাকা দলের সব নেতাকর্মীদের মুক্তি এবং তাদের নামে হওয়া মামলাগুলো প্রত্যাহারের দাবি জানান তিনি। বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, সরকার তার নেতাকর্মীদের নামে হওয়া অসংখ্য মামলা প্রত্যাহার করে নিয়েছে। এই মামলা প্রত্যাহার করার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে একটি কমিটিও রয়েছে। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের নামে কোনো মামলা প্রত্যাহার করা হয়নি। তিনি বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে মামলা মোকাবেলা করছেন। একইভাবে অন্যান্য নেতৃবৃন্দ, (আওয়ামী লীগের নেতা) যাদের নামে পূর্বে মামলা ছিলো, তারাও যদি আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে আদালতের মাধ্যমে মামলা নিস্পন্ন করার মানসিকতা গ্রহন করতেন তাহলে কোনো আপত্তি ছিলোনা।  কিন্তু আমরা দেখতে পাচ্ছি, সমস্ত মামলা কেবল বিরোধী দলের নেতাকর্মী এবং খালেদা জিয়ার জন্য। বিএনপিকে দুর্বল করার জন্যই দলটির নেতাকর্মীদের নামে মামলা সচল রাখা হচ্ছে অভিযোগ করে রিপন বলেন, এই প্রক্রিয়া সরকারের প্রতিপক্ষ হিসেবে বিএনপিকে দুর্বল করার একটি চেষ্টা। তিনি বলেন, মামলা মোকাদ্দোমা দিয়ে নেতাকর্মীকে কারাগারে রেখে কখনই কোনো রাজনৈতিক দলকে চুড়ান্তভাবে দুর্বল করা যায়না, এটি বারবার প্রমানিত হয়েছে। সরকারের এই পদক্ষেপ ভুল। এর মাধ্যমে সরকার হয়তো সাময়িকভাবে ক্ষমতা ভোগ করতে পারবে কিন্তু ভবিষ্যতে তারা তাদের কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবেনা। এতে জনগণের অসন্তুষ্টি ও ক্ষোভ বাড়বে এবং গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলো দুর্বল হয়ে পড়বে। গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে শক্তিশালী করতে হলে শক্তিশালী বিরোধী দল দরকার মন্তব্য করে বিএনপির এই নেতা বলেন, সরকার শক্তিশালী বিরোধী দল রাখার চেয়ে কিভাবে তাদের নির্মুল এবং ধ্বংস করা যায় সেই লক্ষ্যেই এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা সরকারকে এই নীতি কৌশল পদক্ষেপ থেকে বেরিয়ে আসার আহ্বান জানচ্ছি। নির্বাচন, গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে শক্তিশালীকরণ, নির্বাচন কমিশনকে ঢেলে সাজানোরসহ সব বিষয়ে বিএনপির সঙ্গে আলোচনার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান বিএনপির এই মুখপাত্র।

তিনি বলেন, সরকার হয়তো মনে করতে পারেন, বিরোধী দল দুর্বল হয়ে গেছে তাই তাদের সঙ্গে আলোচনা করার কোনো দরকার নেই। কিন্তু বিরোধী দলকে দুর্বল ভাবতে ভাবতে সরকার গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে দুর্বল করে ফেলেছে। সেজন্য দেশে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি হয়েছে যা সরকার সামাল দিতে পারছেনা। তিনি বলেন, আজকে সরকারের মন্ত্রীরা বেপরোয়াভাবে দুর্নীতি করছে। শাসকদলের কর্মীরা চাঁদাবাজিতে লিপ্ত হয়েছে। সারাদেশে এই ধরনের ঘটনা ঘটছে। সরকার যদি বিরোধী দলকে দুর্বল না ভাবতো তাহলে এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হতোনা এবং সরকার তার দলের নেতাকর্মীদের চাপের মধ্যে রাখতে পারতো। রিপন বলেন, সরকার বিরোধী দলকে চাপের মুখে রাখতে গিয়ে নিজেই চাপের মুখে রয়েছে। আমরা আশা করি, সরকার এই পথ থেকে সরে আসবে এবং দেশের গণতন্ত্র সংহত করতে বিরোধী দলের সঙ্গে সব বিষয়ে একটি কার্যকর সংলাপ করবে। সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বিএনপি গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক এড. সানাউল্লাহ মিয়া, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড. মাসুদ আহমেদ তালুকদার, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. আবদুস সালাম আজাদ, সহ আইন বিষয়ক সম্পাদক এড. তৈমূর আলম খন্দকার, সহ দফতর সম্পাদক শামীমুর রহমান শামীম, আসাদুল করিম শাহীন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email