হবিগঞ্জের মেয়র গউছের দায়িত্ব গ্রহণ

0
166
নির্বাচিত হবার ১৫ মাস পর হবিগঞ্জ পৌরসভার দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন টানা ৩ বারের নির্বাচিত মেয়র জি কে গউছ। বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র দিলীপ দাসের কাছ থেকে তিনি তাকে দায়িত্ব বুঝে নেন। এর আগে ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর কারাগারে থেকে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে মেয়র নির্বাচিত হন জিকে গউছ।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টার দিকে দলীয় নেতাকর্মী, শুভাকাঙ্খীদেতর নিয়ে পৌরসভা কার্যালয়ে যান নির্বাচিত এ মেয়র।

পৌরসভার সচিব নুরে আলম সিদ্দিকী বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।জিকে গউছ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় বিএনপির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক।

মেয়র গউছ প্রয়াত অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যা মামলার আসামি হিসেবে কারাগারে থাকায় ২০১৬ সালের ২০ মার্চ স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের এক আদেশে গউছকে মেয়র পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। ২০১৭ সালের ৪ জানুয়ারি সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পান মেয়র জি কে গউছ।২২ জানুয়ারি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সাময়িক আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে একটি রিট পিটিশন দায়ের করেন জিকে গউছ। পরে ২৩ জানুয়ারি গউছের সাময়িক বরখাস্তের আদেশ স্থগিত করেন হাইকোর্ট।

৩০ জানুয়ারি আদালত শুনানি শেষে হাইকোর্টের দেওয়া আদেশ বহাল রাখেন। এই আদেশের ফলে মেয়র জি কে গউছকে হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়রের দায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে আইনগত আর কোনো বাধা ছিল না। কিন্তু রহস্যজনক কারণে গউছকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের চিঠি আসতে প্রায় পৌঁনে দুইমাস সময় অতিবাহিত হয়।

২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জের বৈদ্যের বাজারে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় দুর্বৃত্তদের গ্রেনেড হামলায় নিহত হন সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়াসহ পাঁচ জন। এই হত্যাকাণ্ডের প্রায় ১০ বছর পর ৩য় সম্পূরক চার্জশিটে বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মেয়র জি কে গউছকে আসামি করা হয়। ২০১৪ সালের ২১ ডিসেম্বর কিবরিয়া হত্যা মামলার চার্জশিট আদালতে গৃহীত হলে ২৮ ডিসেম্বর স্বেচ্ছায় আদালতে আত্মসমর্পণ করেন গউছ। কারাগারে থাকা অবস্থায় ২০০৪ সালের ২১ জুন সুনামগঞ্জে সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের জনসভায় বোমা হামলার ঘটনায় দীর্ঘ প্রায় ১২ বছর পর গউছকে শ্যোন এরেস্ট দেখানো হয় –

Print Friendly, PDF & Email