২৬ মার্চও আসা হচ্ছে না মোদির

0
480

Mudi 02
ঢাকা: গত বছর নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ভারতে ক্ষমতায় আসে বিজেপি সরকার। এরপর থেকেই জল্পনা-কল্পনা ছিলো ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির প্রথম বিদেশ সফর হবে ঢাকায়। কিন্তু মোদির প্রথম বিদেশ সফর ছিলো প্রতিবেশি ছোট্ট দেশ ভূটানে। এরপর মার্কিন মুল্লুকে এক সময়ে ‘অছুত’ তকমা পাওয়া মোদি ঘুরে এসেছেন যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন প্রেসিডেন্টও সম্প্রতি ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসে প্রধান অতিথি হিসেবে কুচকাওয়াজে সংবর্ধনা নিতে এসেছিলেন। কিন্তু মোদি সরকারের মেয়াদ প্রায় এক বছরের কাছাকাছি হলেও এখনো চূড়ান্ত হয়নি তার ঢাকা সফরের সময়সূচি।
এর আগে গণমাধ্যমে খবর ছড়িয়ে পড়ে যে নরেন্দ্র মোদি বাংলাদেশের স্বাধীনতার দিবসে আসছেন। সর্বশেষ পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রীর ঢাকা সফরের সময়ও মোদির ঢাকা সফরের বিষয়টি আলোচনায় ছিল।
সে অনুযায়ী জনগণের মধ্যে একটা প্রত্যাশাও তৈরি হয়েছিল। কিন্তু বেশ কিছু দিন ধরে অন্তত সংবাদ মাধ্যমে মোদির সফর নিয়ে কোনো খবর নেই। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে এদফায় মোদি ঢাকা আসছেন না।
মমতার সফরের পরপরই ৩০ ফেব্রুয়ারি মাত্র ২২ ঘন্টার সফরে ঢাকা আসেন ভারতের পররাষ্ট্র সচিব সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্কর।
জয়শঙ্কর আসার পরেই মোদির ঢাকা সফরের ইস্যুটি আরেকদফা চাঙ্গা হয়। ধারণা করা হয়েছিল, জয়শঙ্করের মাধ্যমেই মোদির সফরের চূড়ান্ত দিনক্ষণ ঠিক করা হবে।
এমনকি বাংলাদেশের কূটনৈতিক সূত্রে ওই সময়ে নিশ্চিত করা হয়েছিল যে, ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে মোদির সফরের অনানুষ্ঠানিক প্রস্তাব দেয়া হবে। ২৬ মার্চ ঢাকা আসছে-বলে পত্রপত্রিকায় নিউজও হয়।
এরপর চলতি মাসের শুরুতে মোদির সঙ্গে সাক্ষত করেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা। বলা হয়, বহুল প্রত্যাশিত ২০ মিনিটের বৈঠকে বাংলাদেশ ইস্যুই সর্বোচ্চ গুরুত্ব পায়।
এমনও বলা হয়েছিল, বাংলাদেশের মানুষের জন্যে সুখবর নিয়ে আসতে চান মোদি। এবং মোদি-মমতা বৈঠক থেকেই আসবে সেই সুসংবাদ। আর সুসংবাদ বলতে মূলত তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি এবং ছিটমহল চুক্তির কথাই বোঝানো হয়েছিল।
২৬ মার্চ হতে বাকি আর মাত্র দুদিন। কিন্তু বাংলাদেশ অথবা ভারত কোনো কূটনৈতিক পক্ষ থেকেই মোদির ঢাকা সফরের দিনক্ষণ চূড়ান্ত করা হয়নি। তাহলে কী এ দফায় ঢাকা সফরে আসবেন না মোদি!

Print Friendly, PDF & Email