এইচএসসিতে পাসের হার ও জিপিএ-৫ কমেছে

0
246
stu

ঢাকা: ২০১৫ সালের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ৬৯ দশমিক ৬০ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছে। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪২ হাজার ৮৯৪ জন। গত বছর এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ৭৮ দশমিক ৩৩ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছিল। জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৭০ হাজার ৬০২ জন। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ রোববার সকালে গণভবনে একটি ট্যাবের মাধ্যমে ফলাফলের ডিজিটাল কপি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে তুলে দেন। বিভিন্ন শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানরা এ সময় তার সাথে ছিলেন। বেলা ২টার পর স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে এবং শিক্ষা বোর্ডগুলোর নিজস্ব সাইটে ফলাফল উন্মুক্ত করা হবে। বোর্ডের ওয়েবসাইটের ঠিকানা হচ্ছে, (www.dhakaeducationboard.gov.bd)।

এ ছাড়া অন্যান্য বরাবরের মতো যে কোনো মোবাইল থেকে এসএসএম করে পরীক্ষার ফল জানা যাবে। এ জন্য মোবাইলে ম্যাসেজ অফশনে গিয়ে HSC লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০১৫ লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে। ফিরতি এসএমএস-এ ফল জানিয়ে দেয়া হবে। একইভাবে মাদরাসা বোর্ডের আলিমের ফল জানতে Alim লিখে স্পেস দিয়ে Mad লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০১৫ লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে। এইচএসসি ভোকেশনালের ফল জানতে HSC লিখে স্পেস দিয়ে Tec লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০১৫ লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে। উভয় ক্ষেত্রেই ফিরতি এসএমএসে ফল জানিয়ে দেয়া হবে। গত কয়েক বছরের মত এবারও বোর্ডগুলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে ই-মেইলের মাধ্যমে তাদের ফল জানানো হবে। কোনো ধরনের কাগজ বা লিখিত কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠানো হবে না। এবছর আটটি সাধারণ বোর্ড, মাদ্রাসা এবং কারিগরি বোর্ডের অধীনে ৮ হাজার ৩০৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১০ লাখ ৬১ হাজার ৮৮৪ জন শিক্ষার্থী এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নেয়। ১ এপ্রিল শুরু হয়ে ১১ জুন পর্যন্ত লিখিত পরীক্ষা চলে। এরপর ১৩ থেকে ২২ জুন পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয় ব্যবহারিক পরীক্ষা।

Print Friendly, PDF & Email