কিবরিয়া হত্যা মামলার তৃতীয় চার্জশিট গৃহীত হয়নি

0
202

SM Kibriya
হবিগঞ্জ: সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলার তৃতীয় চার্জশিট গৃহীত হয়নি। তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডির এএসপি মেহেররুন নেছা পারুলের আবেদনের প্রেক্ষিতে তারই দেয়া চার্জশিট সংশোধনের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। বুধবার হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রোকেয়া বেগমের আদালতে মামলাটি উপস্থাপন করেন জিআরও এএসআই বিপ্লব। তৃতীয় সম্পূরক চার্জশিটে হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আলহাজ্জ জিকে গউছ ও সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে জড়ানো হয়।
তবে বিএনপির ওই দুই জনপ্রতিনিধির কারও নাম ঠিকানা সঠিক দেয়া হয়নি। গত ১২ নভেম্বর সম্পূরক চার্জশিট দাখিল করেন এএসপি মেহেরুন নেছা। চার্জশিটে গুরুতর ভুল নিয়ে তখন থেকেই নানা আলোচনা হতে থাকে। পরে এএসপি মেহেরুন নেছা আসামির নাম ঠিকানা সঠিক করে দেয়ার জন্য আদালতে একটি আবেদন করেন।
বুধবার রোকেয়া বেগমের আদালতের ১ নম্বর তালিকায় রাখা হয় কিবরিয়া হত্যা মামলা জিআর ২৬/০৫ মামলাটি। এর পূর্বে আদালত প্রাঙ্গণে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। আদালত কক্ষ থেকে আইনজীবী ছাড়া সবাইকে বের করে দেয়া হয়। এসময় বিএনপি ও আওয়ামী লীগের শতাধিক আইনজীবী আদালতে উপস্থিত ছিলেন।
শুনানির প্রথমেই আদালত সিএসআই (কোর্ট সাব ইন্সপেক্টর) এর কাছে বক্তব্য জানতে চান। সিএসআই মামলার চার্জশিট দাখিলের বিষয়টি অবহিত করে চার্জশিট গ্রহণের আহ্বান জানান। পরে মামলার বাদী হবিগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি আব্দুল মজিদ খান আদালতকে বলেন, ইতিপূর্বে সিএস এর বিরুদ্ধে অনেকবার নারাজি দেয়া হয়েছে। এবার কোনো নারাজি দেয়া হবে না। চার্জশিট গ্রহণ করা যেতে পারে। কিছুক্ষণ পর আদালত সিএসআই এর কাছে জানতে চান তার আর কোনো আবেদন আছে কিনা। জবাবে সিএসআই না সূচক জবাব দেন।
এসময় আদালত বলেন, ‘তদন্তকারী কর্মকর্তাতো আসামির নাম ঠিকানা সঠিক করে দেয়ার জন্য একটি আবেদন করেছেন।’ তখন তড়িগড়ি করে সিএসআই বলেন, ‘জি স্যার, জি স্যার’। আদালত বলেন, আপনাকে তো আইও’র আবেদনের প্রেক্ষিতে কিছু বলতে হবে। নতুবা আমি অর্ডার দেব কিভাবে। শুনানির সময় আদালতে জামিন প্রাপ্ত ৯ আসামি কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন।
তাদের পক্ষে বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন। এক পর্যায়ে সিনিয়র আইনজীবী আরিফ চৌধুরী মামলার কিছু আইনগত ত্রুটি তুলে ধরেন।
এই পর্যায়ে আদালত বলেন, আমরা আজ সিএস এর উপর শুনানি করছি না। সিএস শুনানিকালে আইনগত দিকগুলো খতিয়ে দেখা হবে। পরে আদালত আইওকে আরেকটি সম্পুরক চার্জশিট দাখিল করার আদেশ দিয়ে মামলার তারিখ নির্ধারণ করেন ৩০ ডিসেম্বর।
এর কিছুক্ষণ পর মামলার বাদী আব্দুল মজিদ খান তারিখ আরো আগে দেয়ার প্রার্থনা করলে আদালত পুনরায় ২১ ডিসেম্বর ঘোষণা করেন। এর প্রতিবাদ করেন আসামি পক্ষের আইনজীবীরা।
আসামি পক্ষের আইনজীবী এডভোকেট আব্দুল হাই যুক্তি দেখিয়ে বলেন, আদালতের অর্ডার পাশ হওয়ার পর তা পরিবর্তনের কোনো সুযোগ নেই। একই সঙ্গে তিনি আদালতের নিরপেক্ষতা নিয়েও প্রশ্ন তুলেন। এসময় উভয় পক্ষের আইনজীবীদের মধ্যে হট্টগোল হয়।
পরে আদালত বলেন, নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা ঠিক নয়। আদালত নিরপেক্ষভাবেই কাজ করছে। বুধবার কিবরিয়া হত্যা মামলায় নতুন করে সিনিয়র আইনজীবী আরিফ চৌধুরী ও এম এ মজিদ আসামির পক্ষে ওকালতনামা দাখিল করেন।

Print Friendly, PDF & Email