গণতান্ত্রিক আন্দোলন করলে সহযোগিতা করা হবে: বিএনপিকে সুরঞ্জিত

0
216

suronjit 01

ঢাকা: গণতান্ত্রিক আন্দোলন করলে সহযোগিতা করা হবে বলে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে সহিংস আন্দোলন ছেড়ে গণতান্ত্রিক আন্দোলনে ফিরে আসার আহবান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। সোমবার দুপুরে রাজধানী ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স মিলনায়তনে ‘নৌকা সমর্থক গোষ্ঠি’ আয়োজিত “প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুর রাজ্জাক এর স্মরণ সভা ও চলমান রাজনীতি বিষয়ে” এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন।
খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে সুরঞ্জিত বলেন, আপনার (খালেদা) বিভ্রান্ত রাজনীতির কারণে বিএনপি ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। সহিসংতা ছেড়ে সঠিক রাজনীতিতে ফিরে আসুন। তাহলে আমরাও আপনাকে সহযোগিতা করবো। ইতোমধ্যে সহিসং আন্দোলন করে আপনি ব্যর্থ হয়েছেন। ভবিষ্যতেও হবেন।
তিনি আরো বলেন, দেশে গণতন্ত্র ও মিডিয়া আছে, আন্দোলন করতে চাইলে তা আপনার জন্য খোলা আছে। তবে সে আন্দোলন হতে হবে গণতান্ত্রিক ও সামাজিক। কোন ধরণের সহিংস আন্দোলন করতে পারবেন না। দেশের জনগণ আপনাকে আর সে সুযোগ দেবে না।
‘একটি শক্তিশালী নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাচন হওয়া উচিত’ সম্প্রতি সংবিধান প্রণেতা ও গণ-ফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেনের এমন বক্তব্যের সম্পর্কে তিনি বলেন, আপনার (ড.কামাল) সঙ্গে আমিও একমত। তবে আমি মনে করি, শুধু শক্তিশালী নয়, একটি নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাচন হওয়া উচিত।
সুরঞ্জিত বলেন, খালেদা জিয়া মুক্তিযোদ্ধা সম্মেলন করে, হঠাৎ করে মুক্তিযোদ্ধা হয়ে গেলেন। বলে দিলেন মুক্তিযুদ্ধের সময় আওয়ামী লীগ নেতারা ভারতে আশ্রয় নিয়েছিলেন। আমি তাকে (খালেদা) স্পষ্ট করে বলতে চাই। মুজিব নগর সরকার ও আওয়ামী লীগের নেতৃতেই মুক্তিযুদ্ধ হয়েছে। এটাই মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস।
সুরঞ্জিত বলেন, আব্দুর রাজ্জাকের অবদান বাঙালী জাতি চিরদিন মনে রাখবে। তিনি ছিলেন বঙ্গবন্ধুর একান্ত সহচর। তিনি ২৪ ঘণ্টাই দেশের কথা ভাবতেন। তাকে যতদিন স্মরন করা হবে, ততদিনই ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধসহ বাঙালী জাতির সকল অর্জনকে মনে পড়বে। কারণ দেশের সব অর্জনে তার ভূমিকা ছিল অতুলনীয়।
ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী মো: সেলিমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ম-লীর সদস্য সতীশ চন্দ্র রায়, আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজম্ম লীগের সভাপতি এডভোকেট আসাদুজ্জামান দূর্জয়, সাম্যবাদী দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য হারুন চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাই কানু, বঙ্গবন্ধু একাডেমীর মহাসচিব হুমায়ুন কবির মিজি প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email