জগন্নাথপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধসহ আহত ২০

0
323

জগন্নাথপুর প্রতিনিধি: জগন্নাথপুরে তরুণদের ঝগড়া নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় গুলিবিদ্ধসহ কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন। ঘটনাটি ঘটেছে জগন্নাথপুর উপজেলা কলকলিয়া ইউনিয়নের শ্রীধরপাশা গ্রামে। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। আবারো বড় ধরণের সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী।
স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, গত মঙ্গলবার রাতে গ্রামের আছাদ মিয়া নামের এক তরুণ একটি অটোরিক্শা নিয়ে গ্রামের রাস্তা দিয়ে বাড়িতে যাওয়ার পথে একই গ্রামের ছোট মিয়া নামের আরেক তরুণ বাধা দেয়। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও হাতাতির ঘটনা ঘটে। এরই জের ধরে গতকাল বুধবার সকাল ৯ টার দিকে আছাদ পক্ষের কাপড় ব্যবসায়ী রাহাদ মিয়া বাড়ি থেকে বাজারে যাওয়ার পথে তাঁকে ছোট মিয়া পক্ষের সুজেব মারপিট করে। এ খবর গ্রামে ছড়িয়ে পড়লে উভয় পক্ষের লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। বিষয়টি গ্রামের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মতিনের বাড়িতে গিয়ে শালিসে নিস্পত্তির জন্য গ্রামের অন্যান্য লোকজন উদ্যোগ নেন। এ সময় শালিসে বসার আগেই উভয় পক্ষের উত্তেজিত লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। সংঘর্ষে বেশ কয়েক রাউন্ড বন্দুকের গুলি বর্ষণের ঘটনা ঘটে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান। প্রায় ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষের ঘটনায় এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। সংঘর্ষে আছাদ পক্ষের গুলিবিদ্ধসহ আহতরা হচ্ছেন, সুহাজ মিয়া, সুয়েব মিয়া, মইন উদ্দিন, সুজন মিয়া, রায়হান মিয়া, আবুল লিজা, রাসেল মিয়া, তোফায়েল আহমদ, ফখরুল ইসলাম, আব্দুল করিম, আবুল লেইছ, আফছর খান, উজ্জল মিয়া ও খসরু মিয়া। ছোট মিয়া পক্ষের আহতরা হচ্ছেন ছোরাব মিয়া, রাজু মিয়া, তফজ্জুল হোসেন ও আনোয়ার হোসেন মাসুদ। এতে উভয় পক্ষে কমপক্ষে ২০ জন আহত হন। আহতদের মধ্যে গুলিবিদ্ধ ৭ জনসহ মোট ১১ জনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। অন্যান্য আহতদের জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তিসহ প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়।
জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ইমার্জেন্সি বিভাগে চিকিৎসাধীন আছাদ পক্ষের আবুল লিজাসহ আহতরা জানান, প্রতিপক্ষের ছোড়া বন্দুকের গুলিতে আমাদের পক্ষের ৭ জন গুলিবিদ্ধসহ কমপক্ষে ১৬ জন আহত হয়েছেন। ছোট মিয়া পক্ষের ছোরাব মিয়াসহ আহতরা জানান, সংঘর্ষে আমাদের পক্ষের ৪ জন আহত হন।
খবর পেয়ে জগন্নাথপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ব্যাপারে ঘটনাস্থল পরিদর্শনকারী জগন্নাথপুর থানার এসআই কায়েমুল ইসলাম জানান, ঘটনাটি আপোষে নিস্পত্তির জন্য এলাকার লোকজন উদ্যোগ নিয়েছেন। তবে গুলাগুলির বিষয়টির সত্যতা যাছাই করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email