জাতির উদ্দেশ্যে শেষ ভাষণে যা বললেন বারাক ওবামা

0
513
ফাইল ছবি

নিউইয়র্ক: মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া জীবনের শেষ ভাষণ স্টেট অব দ্য ইউনিয়নে’ আমেরিকার সম্ভাবনাময় ভবিষ্যত নিশ্চিতে তার নেয়া পদক্ষেপগুলোকে সঠিক বলে দৃঢ়ভাবে দাবি করেছেন। সাম্প্রতিককালে নির্বাচনী বিতর্কে আমেরিকার অর্থনৈতিক সক্ষমতা হ্রাস পেয়েছে বলে সমালোচনার জবাবে ওবামা বলেন, ‘আমেরিকার অর্থনীতি বিশ্বে সবচেয়ে শক্তিশালী ও টেকসই’।
বুধবার ওয়াশিংটনে দেয়া ভাষণে উপস্থিত কংগ্রেসম্যান ও সিনেটরদের উদ্দেশ্যে ওবামা বলেন, ‘আমেরিকার অর্থনৈতিক শক্তি খর্ব হচ্ছে বলে যারা দাবি করছেন তারা ‘আষাঢ়ে গল্প’ বলছেন’। কংগ্রেসে দেয়া ভাষণে ওবামা তার স্বাস্থ্য খাতের পুর্নগঠনের মত সফল ইস্যুগুলো নিয়ে আলোচনা করেন।
বিবিসির আমেরিকা শাখার সম্পাদক জন সপেল বলেন, এই বক্তব্যে ওবামা তার গৃহীত নীতিগুলোর কথা আলোচনা করেননি বরং তিনি যখন হোয়াইট হাউসে এসেছিলেন তার তুলনায় বর্তমান আমেরিকা কত বেশি উন্নত সেই পর্যালোচনাই তার বক্তব্যে ফুটে উঠেছে।
ওবামা বলেন, হাতে থাকা মাত্র এক বছর সময়ের মধ্যে রিপাবলিকান নিয়ন্ত্রিত কংগ্রেসে বেশি কিছু করার সুযোগ আর নেই।
মার্কিন ইতিহাসে প্রথম এই কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট ওবামা বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট হিসেবে শেষ ভাষণে আমি শুধু আগামী বছরের কথা বলতে চাই না, আমি পরের ৫ বছর, ১০ বছর এমনকি আরো পরের সময় নিয়ে আলোকপাত করতে চাই। আমি আমাদের ভবিষ্যত নিয়ে কথা বলতে চাই’।
আমেরিকার অর্থনৈতিক সক্ষমতা হ্রাস পাচ্ছে বলে রাজনীতিবিদ ও বিশ্লেষকদের সমালোচনা নাকচ করে ওবামা বলেন, সত্যি বলতে, আমেরিকার অনেক জনগণ অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনের দ্রুততায় ভীত হয়ে পড়েছেন।
প্রেসিডেন্ট ওবামা আয়ের অসমতা দূরীকরণ, প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহারের মাধ্যমে জলবায়ু পরিবর্তন সমস্যা মোকাবেলা এবং জাতীয় নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের উপর গুরুত্বারোপ করেন। তবে তিনি মধ্যপ্রাচ্যসহ বিভিন্ন দেশে চলমান সংঘর্ষ নিয়ে কিছু বলেননি।
তার শাসন আমলে ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকানদের মধ্যে শত্রুতা বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে বলে ওবামা তার ভাষণে উল্লেখ করেছেন।
তিনি ভোটার ও রাজনীতিবিদদের বিভক্তির পথ পরিহার করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘আমাদের নিজেদের মঙ্গলের জন্য বিভক্তি প্রক্রিয়া পরিহার করা উচিত’।
ওবামা তার ভাষণে মুসলিম বিদ্বেষ ও অভিবাসী সমস্যা নিয়েও কথা বলেছেন। বারাক ওবামা আসন্ন নির্বাচনে রিপাবলিকান দলের সম্মুখ সারির প্রতিদ্বন্দ্বী ডোনাল্ড ট্রাম্পকে কটাক্ষ করে বক্তব্য দিয়েছেন।
তিনি বলেন, ‘যখন কোনো রাজনীতিবিদ নিজ দেশের বা বিদেশের মুসলিমদের অপমান করে বক্তব্য দেয়, যখন কোনো মসজিদ ভাংচুর করা হয়, সেটা আমাদেরকে নিরাপদ করে না। এটা সঠিক নয়। এটা বিশ্বের চোখে আমাদেরকে ছোট করে ফেলে। এটা আমাদের লক্ষ্যে পৌঁছানোকে কঠিন করে তোলে। এটা আমাদের দেশের সাথে প্রতারণা করার সামিল।’
তার এই বক্তব্য দেবার সময় উপস্থিত কংগ্রেস নেতৃবৃন্দ করতালিতে ফেটে পড়েন। প্রেসিডেন্ট ওবামার ওই স্টেট অব দ্য ইউনিয়ন ভাষণ চলাকালে ডোনাল্ড ট্রাম্পও সেখানে উপস্থিত ছিলেন।
তবে প্রসিডেন্ট ওবামার স্টেট অব দ্য ইউনিয়ন ভাষণের সমালোচনামূলক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন রিপাবলিকান মনোনয়ন প্রত্যাশীরা।
শীর্ষ প্রতিদ্বন্দ্বী ডোনাল্ড ট্রাম্প সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে বলেন, ‘আমার শোনা স্টেট অব দ্য ইউনিয়ন ভাষণের মধ্যে সবচেয়ে বিরক্তিকর, অসংলগ্ন ও অবাস্তব ভাষণ এটি’।

আরেক প্রার্থী টেড ক্রুজ বলেছেন, ‘যতটা না সংযুক্তির তার চেয়ে বেশি অস্বীকারের ভাষণ এটি’।
মার্কো রুবিও বলেছেন, ‘যখন আইএস মানুষের শিরোশ্ছেদ করছে ও খাচায় বন্দী করে পুড়িয়ে মারছে তখন প্রেসিডেন্ট ওবামা বলেন জলবায়ু পরিবর্তন আমাদের প্রধান সমস্যা।’
বুশ পরিবারের কণিষ্ঠ সদস্য জেব বুশ বলেছেন, ‘আমেরিকা নিরাপদ? আইএসের উত্থান ঘটেছে, উত্তর কোরিয়া পারমাণবিক অস্ত্রের পরীক্ষা চালাচ্ছে, তালেবান দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। আমাদের প্রেসিডেন্ট অন্য জগতে বাস করছেন’।
প্রেসিডেন্ট হিসেবে দুই মেয়াদে দায়িত্ব পালনকারী বারাক ওবামার এটাই ছিল জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া শেষ ভাষণ।
সূত্র: বিবিসি