দিরাইয়ে আওয়ামীলীগ ও যুবলীগের ফের বন্দুকযুদ্ধ ৩ জন গুলিবিদ্ধসহ আহত ১০

0
246

 

আবুল হোসাইন, সুনামগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে ঘোড়ামাড়া সাতপাকিয়া প্রকাশিত জারলিয়া নদীর কোটি টাকার জলমহাল দখল নিয়ে আবারও আওয়ামীলীগ ও যুবলীগের বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় ৩জন গুলিবিদ্ধসহ ১০জন আহত হয়েছে। গতকাল দুপুর ১২টায় উপজেলার কুলঞ্জ ইউনিয়নের জারলিয়া নদীর তীরে এঘটনাটি ঘটে। বন্ধুক যুদ্ধে গুলিবিদ্ধ সাবেক ইউপি সদস্য মাসুক মিয়া (৫৫), জেবু মিয়া (২৭) ও লিটন মিয়া (৩২) কে গুরুতর আহত অবস্থায় সিলেট এমএজি ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। বাকিদের দিরাই উপজেলা ¯^াস্থ্য কমপ্লেক্্ের ভর্তি ও প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। খবর পেয়ে দিরাই থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে। এলাকার পরিস্থিতি থমথমে ফের সংঘর্ষের আশঙ্কায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এলাকাবাসী ও থানা পুলিশ সুত্রে জানা যায়, গতকাল দুপুর ১২ টায় নদীর উত্তর পাড়ে খলাঘর নির্মান করতে গেলে কুলঞ্জ গ্রামের সাবেক মেম্বার ও আওয়ামীলীগ নেতা মাসুক মিয়াসহ তার লোকজনকে বাধা দেয় যুবলীগ নেতা হাতিয়া গ্রামের একরারের লোকজন। এ সময় উভয় পক্ষ বন্ধুক যুদ্ধে লিপ্ত হয়। একপর্যায়ে একরারের লোকজন মাসুক মেম্বার ও তার লোকজন কে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে বিতাড়িত করে খলা ঘর দখলে নিয়ে যায়।এতে উভয় পক্ষের ৩ জন গুলিবিদ্ধসহ ১০ জন আহত হয়। জলমহালের এক পক্ষের ইজারাদার দাবী করে রাড়ইল গ্রামের আব্দুল কাদির চৌধুরী জানান, একরারসহ তার লোকজন দিনদূপুরে নির্মানাধীন খলাঘরে হামলা চালায়। তারা আমাদের লোকজনকে আহতকরে জাল, নৌকা ও আহত মাসুক মিয়ার লাইসেন্সকৃত বন্দুকসহ প্রায় ৪০লক্ষ্য টাকার মালামাল লুটে নিয়ে গেছে।অপর পক্ষের ইজারাদার দাবীদার যুবলীগ নেতা একরার হোসেন জানান, আমি জলমহালটির বৈধ ইজারাদার হিসেবে গত ২ বছর ধরে   ভোগ দখল করে আসছি,মাসুক মেম্বারের নেতৃত্বে আমার কাটাবাশ দেয়া জলমহালটি দখলে নিতে আসলে সংঘর্ষ হয় । উল্যেখ্য গত ৩০ সেপ্টেম্বর উক্ত জলমহালের দখলকে কেন্দ্র করে যুবলীগ নেতা একরার ও কাওসারের লোকজনের মধ্যে বন্দুক যুদ্ধের ঘটনায় ৭জন গুলিবিদ্ধ হয়। এব্যাপরে দিরাই থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (দায়িত্বপ্রাপ্ত) শাহ আলম জানান, সংঘর্ষের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসআই জিয়ার নেতৃত্বে একদল পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email