বাংলাদেশকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন মালয়েশিয়া

0
227

Bongobondhu Gold Cup
স্পোর্টস ডেস্ক: ৯০ মিনিটের খেলা শেষ। স্টপেজ টাইমের খেলা চলছে। মনে হচ্ছিলো, অতিরিক্ত সময়ে যাবে ফাইনালের খেলা। আর এই সময়েই বাংলাদেশের স্বপ্নের বুকে ছুরি বসিয়ে দিলেন মোহাম্মদ ফাইজাত। স্টপেজ টাইম বা ইনজুরি টাইমের গোলে তিনি মালয়েশিয়াকে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের চ্যাম্পিয়ন করে দিলেন। তার গোলেই ৩-২ গোলে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে স্বাগতিক বাংলাদেশকে হারিয়েছে মালয় টাইগার্সরা। কর্নার থেকে উড়ে আসা বলে অনেকটা ওপরে লাফিয়ে মাথার ছোঁয়ায় জালে জড়িয়ে গোটা স্টেডিয়ামে নিস্তব্ধতা এনে দেন ফাইজাত।
তার আগে প্রথমার্ধে ২-০ গোলের লিড নিয়ে বিরতিতে গিয়েছিলো মালয়েশিয়া। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধ বাংলাদেশ ম্যাচে ফিরে আসে অসাধরণ লড়াই করে। বিরতির পর ১০ মিনিটে দুই গোল করে বাংলাদেশ ম্যাচে ফেরে। বিরতির পর তৃতীয় মিনিটেই এমিলি গোল করে ব্যবধান কমিয়েছেন। আর ৫৩ মিনিটে হেড থেকে দেখার মতো গোল করে ইয়াসিন খান সমতা আনেন ম্যাচে।
দ্বিতীয়ার্ধে মাঠে নেমেই দারুণ খেলে বাংলাদেশ। আক্রমণে গিয়েছিলো তারা। ডান প্রান্ত থেকে থ্রো ইন পায় বাংলাদেশ। লম্বা থ্রো করে মালয়েশিয়ার গোলমুখে বল পাঠান রায়হান। ১ম সেমিফাইনালের গোলদাতা নাসির হেড করলেও গোল লাইন থেকে মালয় ডিফেন্ডার ঠেকিয়ে দেন বল। ফিরে আসা বলকে খুব দ্রুতই জালে জড়িয়ে দিয়েছেন এমিলি।
এই গোলের উৎসব তখনো শেষ হয়নি স্টেডিয়ামে। এর মধ্যে আবার আক্রমণ করে বাংলাদেশ। ডান প্রান্ত থেকে কর্নার করেছিলেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মামুনুল। আর উড়ে আসা বলে অসাধারণ ভাবে হেড করে বলটাকে জালের ভেতর পাঠিয়ে দেন ইয়াসিন খান। আবার মেতে ওঠে গোটা স্টেডিয়াম। চমৎকারভাবে ম্যাচে ফিরে আসে বাংলাদেশ।
স্টেডিয়াম ভর্তী লাল সবুজের দর্শকের মাঝে বাংলাদেশের শুরুটা হয়েছিলো ভালো। ছোটো ছোটো পাসে ক্রুইফের শিষ্যরা আতঙ্ক ছড়াচ্ছিলো বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা। শুরুর দিকেই জামাল ভূইয়ার একটি শট বাইরে দিয়ে চলে যায়। এরপর ৩১ মিনিটে বড় ডি বক্সের বাইরে ফ্রি কিক পায় মালয়েশিয়া। সেই সেট পিসে বলের মাঝে প্রাণ দিয়ে দেন মালয় অধিনায়ক নাজিরুল। অসধারণ সেই শটে বল গিয়ে জড়ায় জালে। গোলকিপার শহিদুলের কিছুই করার থাকেনি।
এক গোলে পিছিয়ে থেকে বাংলাদেশ অল আউট আক্রমণে যায়। সবাই যখন আক্রমণে তখন পাল্টা আক্রমণের সুযোগ নেয় মালয় টাইগার্সরা। আর তাতে রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারদের মালয় টাইগাররা আরো পেছনে ছিটকে ফেলে। মাঝমাঠের জটলা থেকে বল পেয়েছিলেন কুমারন। দুই পাশ থেকে দুই ডিফেন্ডার চেপে ধরেছিলো কুমারনকে।
কিন্তু খুব ঠাণ্ডা মাথায় এই খেলোয়াড় বল নিয়ে ঢুকে পড়েন ছোট বক্সে। সেখানে আগুয়ান গোলকিপার শহিদুলকে চোখের পলকে ফাঁকি দিয়ে জালে বল জড়িয়ে দেন কুমারন। ২-০ গোলের লিড নিয়ে প্রথমার্ধ শেষ করে মালয়েশিয়া। আর ম্যাচশেষে তারাই হেসেছে চ্যঅম্পিয়নের হাসি।

Print Friendly, PDF & Email