বিচারকের আসনে বসলেন যৌনকর্মীর সন্তান

0
416

আন্তর্জাতিক নারী দিবসের পরদিন বিচারকের আসনে বসলেন যৌনকর্মীর সন্তান এবং রূপান্তরকামী সিন্টু বাগুই। তিনি ভারতের পশ্চিমবঙ্গের শেওড়াফুলি স্টেশনের পার্শ্ববর্তী গড়বাগানের বাসিন্দা। বিচারকাজ সামলে তিনি বলেন, ‘যৌনকর্মীর সন্তান‌ এবং রূপান্তরকামী হিসেবে সম্ভবত আমিই প্রথম এই দায়িত্ব পালন করলাম। আত্মবিশ্বাস বাড়ল।’

যৌনকর্মীর সন্তান‌ এবং একজন রূপান্তরকামী হওয়ায় ছোটবেলা থেকে বাঁকা চাহনি কম দেখতে হয়নি ২৭ বছরের সিন্টুকে। টিপ্পনিও হজম করতে হয়েছে অনেক। কিন্তু হাল ছাড়েননি তিনি। রূপান্তরকামীদের আন্দোলনে জড়িয়ে গেছেন তিনি। আন্তর্জাতিক নারী দিবসের পরের দিন এই সিন্টুই শ্রীরামপুরে লোক আদালতের বিচারকের আসনে বসেন।

আদালতে জমে থাকা কিছু মামলা বা লঘু অপরাধ এবং মামলার পূর্বাবস্থায় থাকা বিষয়ের নিষ্পত্তি হয় লোক আদালতে। প্রাক্তন বা বর্তমান বিচারক, আইনজীবী এবং সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তি বিচারক হন। শনিবার ছিল জাতীয় লোক আদালত। হুগলি জেলার চার মহকুমায় লোক আদালত বসেছিল। সম্প্রতি হুগলি জেলা আইনি পরিষেবা কর্তৃপক্ষের (ডালসা) পক্ষে সমাজকর্মী হিসেবে সিন্টুকে বিচারকের আসনে বসার প্রস্তাব দেওয়া হয়।

শ্রীরামপুরে লোক আদালতের পাঁচটি বেঞ্চ বসেছিল। তার একটিতেই অন্যতম বিচারক ছিলেন সিন্টু। দেড় বছর আগে এখানেই লোক আদালতের বিচারক ছিলেন রূপান্তরকামী শ্যাম ঘোষও।

শনিবার সিন্টুর সঙ্গে ছিলেন ‘ডালসা’র সচিব অনির্বাণ রায় ও আইনজীবী অংশুমান চক্রবর্তী। অনির্বাণ জানান, ওই বেঞ্চে বিএসএনএল সংক্রান্ত প্রায় আড়াইশো বিষয়ের বেশির ভাগই নিষ্পত্তি হয়েছে। সিন্টু অত্যন্ত দৃঢ়তার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন।

সিন্টুর কথায়, ‘স্যার (অনির্বাণবাবু) নিয়ম-কানুন শিখিয়ে দিয়েছিলেন। ভরসা রেখেছেন। কোনও অসুবিধা হয়নি।’

Print Friendly, PDF & Email