ভোট জালিয়াতিতে প্রিজাইডিং অফিসার

0
227

Logo ec
ঢাকা: কেন্দ্রে ভোটগ্রহণের দায়িত্বে থাকা সর্বোচ্চ কর্মকর্তা হয়েও ঢাকা দক্ষিণের একটি কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসারকে ক্ষমতাসীন দল সমর্থিত মেয়র প্রার্থীর প্রতীকে সিল মারতে দেখা গেছে। পুরান ঢাকার নারিন্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে প্রিজাইডিং অফিসার ওবায়দুল ইসলামকে ব্যালট পেপারে সিল মারতে দেখেন বিডিনিউজের প্রতিবেদক।
তিনি জানান, ঢাকা দক্ষিণের ৪১ নম্বর ওয়ার্ডের ৬৪২ নম্বর ওই ভোটকেন্দ্রের সামনে থেকে সকালে ভোটারদের ফিরিয়ে দিতে দেখা যায় পুলিশ ও আনসার সদস্যদের।
ভোটাররা কেন্দ্রে ঢুকতে গেলে দায়িত্বরত এক পুলিশ সদস্য তাদের বলেন, ভেতরে সকলে নাস্তা করছে। এখন না পরে আসেন। এ সময় কোনো প্রতিবাদ না করেই ভোটারদের ফিরে যেতে দেখা যায়। সাংবাদিক পরিচয়ে ভেতরে ঢুকতে চাইলে তাকে কেন্দ্রে ঢুকতে দেওয়া হয়।
তবে ভেতরে গিয়ে কাউকে নাস্তা খেতে দেখেননি বিডিনিউজের প্রতিবেদকব। ওই ভোটকেন্দ্রের দোতলায় দুটি ভোটকক্ষের মধ্যে একটি বন্ধ ছিল। এক নম্বর বুথে যেতে চাইলে তাকে বাঁধা দেওয়ার চেষ্টা করেন কার্ডবিহীন দুই ব্যক্তি।
তাদের ফাঁক দিয়ে উঁকি দিয়ে দেখা যায়, প্রিজাইডিং অফিসার ওবায়দুল ইসলাম, পোলিং অফিসার ইলিশ মাছ প্রতীকের পোলিং এজেন্ট এবং দুজন কার্ডহীন ব্যক্তি ব্যালট পেপারে সিল মারছেন। তারা সবাই ইলিশের সিল দিচ্ছিলেন।
সাংবাদিকের উপস্থিতি টের পেয়ে সবাই এরপর যার যার আসনে বসে পড়েন। প্রিজাইডিং অফিসার বুথ থেকে বেরিয়ে নিচে নেমে যান। এসময় কার্ডবিহীন ব্যক্তিদের কাছে পরিচয় জানতে চাইলে তার বলেন, তাদের ‘কোনো পরিচয় নাই’।
প্রিজাইডিং অফিসারের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে ‘নির্বাচন কমিশন থেকে লোক আসার’ অজুহাত দেখিয়ে তিনি নিজের কক্ষে ঢুকে পড়েন। প্রায় পাঁচ মিনিট পর তিনি প্রতিবেদককে তার কক্ষে ডেকে পাঠান। তখন ওবায়দুল ইসলাম বলেন, “ওই বুথে আমি একজন মেয়র প্রার্থীর এজেন্ট পেয়েছি। আর কাউকে পাই নাই।”
ওই কেন্দ্র থেকে বের হওয়ার সময়ও ভিতরে ‘নাস্তা হচ্ছে’ বলে ভোটারদের ঢুকতে পুলিশকে বাধা দিতে দেখা যায় বলে প্রতিবেদক জানান।

Print Friendly, PDF & Email