হরতালের সমর্থনে আদালত প্রাঙ্গনে আইনজীবিদের মিছিল

0
335

Syl micil
সিলেট: দেশ জাতি আজ চরম ক্রান্তিকাল অতিবাহিত করছে। মানুষের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠার চলমান শান্তিপুর্ন আন্দোলন বানচাল করে জাতির দৃষ্টি ভিন্নখাতে ফেরাতেই ২০ দলীয় জোট প্রধান ৩ বারের সাবেক সফল প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার কার্যালয়ের খাবার সংগ্রহ বন্ধ করা হয়েছে। ৫ জানুয়ারীর ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে বাকশালী শাসনে মৃতপ্রায় গনতন্ত্রের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দিয়েছিল ফ্যাসীবাদি আওয়ামী সরকার। গনতন্ত্র পুনরুদ্ধারে জাতীয় দাবীতে গোটা জাতি আজ ঐক্যবদ্ধ। আওয়ামী অপশক্তি জনতার আন্দোলন দমাতে দেশব্যাপী গণগ্রেফতার চালিয়ে বিরোধী নেতাকর্মীদের উপর জুলুম নিপীড়নের ষ্টীমরোলার চালাচ্ছে। আওয়ামীলীগ নিজেদের লোক দিয়ে পরিকল্পিতভাবে পেট্রোল বোমায় নিরীহ মানুষ হত্যা করে এর দায় বিরোধী নেতাকর্মীদের উপর চাপিয়ে কতিথ বন্দুক যুদ্ধের নাটক মঞ্চস্থ করে দেশব্যাপী ক্রসফায়ার চালিয়ে বিচারবহির্ভুত হত্যার মহোৎসবে মেতে উঠেছে। আওয়ামীলীগের অবৈধ ক্ষমতালিপ্সা পুরণে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর কতিপয় দলবাজ কর্মকর্তা বিচারবহির্ভুত হত্যা উস্কে দিচ্ছেন। সংশ্লিষ্টদের মনে রাখতে হবে যে এই সরকারই শেষ সরকার নয়। কেউ আইনের উর্ধ্বে নয় বিচারবহির্ভুত হত্যার সাথে জড়িতদের অবশ্যই বিচারের কাঠগড়ায় দাড়াতে হবে।
সোমবার ২০ দলীয় জোট কেন্দ্র আহুত টানা ৭২ ঘন্টার হরতালের ২য় দিন হরতাল চলাকালে বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ ও ইসলামী মুল্যবোধে বিশ্বাসী আইনজীবিদের উদ্যোগে আদালত প্রাঙ্গনে বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। মিছিল পরবর্তী সংক্ষিপ্ত সমাবেশে নেতৃবৃন্দ উপরোক্ত কথা বলেন।
নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, অবৈধ সরকারের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত ৩বারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ২০ দলীয় জোট প্রধান দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সন্ত্রাসের রানী বলে নিজেকে কান্ডজ্ঞানহীন ব্যাক্তিদের কাতারে শামিল করেছেন। এদেশে হত্যা আর ধ্বংসযজ্ঞ সৃষ্টির আওয়ামী কালো ইতিহাসের ঘৃনিত রেকর্ড কেউ কোনদিন ভাঙ্গতে পারেনি পারবেও না। তারা ক্ষমতায় থাকলেও হিং¯্র বিরোধী দলে থাকলেও হিং¯্র। তাদের লগি বৈঠা দিয়ে পিটিয়ে নিরীহ মানুষ হত্যা করে লাশের উপর নৃত্য করা আর গান পাউডার দিয়ে নিরীহ মানুষ পুড়িয়ে মারার লোমহর্ষক হত্যা কান্ড জাতি আজও ভুলেনি। সুতরাং দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া নয় অর্থমন্ত্রী সাহেবের দলের নেত্রীই সন্ত্রাসবাদের পৃষ্ঠপোষক। সরকারের একটি গুরুত্বপুর্ন পদে থেকে এমন অবান্তর মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানান তারা।
জাতীয়তাবাদী আইনজীবি ফোরাম সিলেট-এর সভাপতি এডভোকেট আশিক উদ্দিন আসুক-এর সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক এডভোকেট আতিকুর রহমান সাবু’র পরিচালনায় অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে জাতীয়াতাবাদে বিশ্বাসী আইনজীবিদের মধ্যে থেকে উপস্থিত ছিলেন, এডভোকেট নুরুল হক, এডভোকেট আব্দুল গাফ্ফার, এডভোকেট নোমান মাহমুদ, এডভোকেট জুবায়ের আহমদ খান, এডভোকেট আনোয়ার হোসেন, এডভোকেট শামীম সিদ্দীকি, এডভোকেট বদরুল ইসলাম চৌধুরী, এডভোকেট হাদিয়া চৌধুরী মুন্নি, এডভোকেট আক্তার বক্স জাহাঙ্গীর, এডভোকেট কামাল হোসাইন, এডভোকেট মহসিন আহমদ চৌধুরী, এডভোকেট হাসান আহমদ পাটোয়ারী রিপন, এডভোকেট কবির আহমদ বাবর, এডভোকেট আলী হায়দার খান, এডভোকেট হেলাল আহমদ, এডভোকেট মো: খালেদ জুবায়ের, এডভোকেট ইসরাফিল আলী, এডভোকেট কামরুজ্জামান, এডভোকেট ফরহাদ খন্দকার, ইসলামী মুল্যবোধে বিশ্বাসে আইনজীবিদের মধ্য থেকে উপস্থিত ছিলেন এডভোকেট আব্দুর রব, এডভোকেট জিয়া উদ্দিন নাদের, এডভোকেট আলিম উদ্দিন, এডভোকেট সিরাজুল ইসলাম, এডভোকেট জামিল আহমদ রাজু, এডভোকেট আব্দুল খালিক, এডভোকেট আজিম উদ্দিন, এডভোকেট তৌহিদুল ইসলাম সোহাগ, এডভোকেট আব্দুল আহাদ, এডভোকেট আজহারুল ইসলাম চৌধুরী ও এডভোকেট বাবুল বেগ প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email