২৩ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় নির্বাচন

0
225

ঢাকা: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে চলা মতপার্থক্য আর বিতর্কের মধ্যে বৃহস্পতিবার নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন।

সন্ধ্যায় টেলিভিশনে দেয়া এক ভাষণে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা আগামী ২৩শে ডিসেম্বর নির্বাচনের ভোট গ্রহণ হবে বলে ঘোষণা দেন। খবর বিবিসি’র।

নির্বাচনে ভোট গ্রহণে সীমিত আকারে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন বা ইভিএম ব্যবহার হবে বলে তিনি জানিয়েছেন। তিনি দেশের সব রাজনৈতিক দলকে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

হুদা বলেছেন, ‘তাদের মধ্যে কোন বিষয় নিয়ে মতানৈক্য বা মতবিরোধ থেকে থাকলে রাজনৈতিকভাবে তা মীমাংসার অনুরোধ জানাই। প্রত্যেক দল একে অপরের প্রতি সহনশীল, সম্মানজনক এবং রাজনীতিসুলভ আচরণ আমি প্রত্যাশা করছি।’

প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেছেন, ‘সংবিধান মোতাবেক ২৮ জানুয়ারি ২০১৯ সালের মধ্যে নির্বাচন সম্পন্ন করার বাধ্য বাধকতা রয়েছে।’

এক নজরে নির্বাচনের তফসিল

১। মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ তারিখ: ১৯শে নভেম্বর, ২০১৮ সোমবার

২। মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের তারিখ: ২২শে নভেম্বর, ২০১৮ বৃহস্পতিবার

৩। প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ: ২৯শে নভেম্বর, ২০১৮ বৃহস্পতিবার

৪। ভোট গ্রহণের তারিখ: ২৩শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রবিবার

বর্তমান সংসদের মেয়াদ রয়েছে ২০১৯ সালের ২৮শে জানুয়ারি পর্যন্ত। সংবিধান অনুযায়ী সরকার সংসদ বহাল রেখে এই মেয়াদের ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন আয়োজন করতে চেয়েছে।

তবে বিরোধী রাজনৈতিক জোট, অর্থাৎ বিএনপিসহ জাতীয় ঐক্য ফ্রন্ট সংসদ ভেঙে দিয়ে মেয়াদ পূর্তির পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচনের দাবি জানিয়ে আসছে। সেজন্য তারা তফসিল পিছানোরও দাবি করেছিল।

কিন্তু তাদের দাবি না মেনে নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষণা করলো। সংসদের মোট ৩০০টি আসনে সরাসরি প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচন করবেন প্রার্থীরা।

এর আগে ২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারি একতরফা নির্বাচন বর্জন করেছিলো দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপি এবং তাদের পুরনো ২০-দলীয় জোটের মিত্ররা।

ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন জোটের ১৫৪ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়ে সংসদ সদস্য হয়েছিলেন এবং নির্বাচনটিকে দেশে বিদেশে বিতর্কিত হিসেবে আখ্যা দেয়া হয়।

Print Friendly, PDF & Email