ইরানকে নিয়ে ট্রাম্পের নতুন হুঁশিয়ারি

0
50

ইরানের কাছে কখনো পারমাণবিক অস্ত্র থাকবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এক টুইট বার্তায় তিনি এই হুঁশিয়ারি দেন। মার্কিন বিমান হামলায় গত শুক্রবার ইরানের জেনারেল কাসেম সোলেইমানি হত্যার পর উপসাগরীয় অঞ্চলে উত্তেজনা বৃদ্ধি পায়। এর জেরে ‘২০১৫ সালের পারমাণবিক চুক্তি’ অমান্য করে পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির ঘোষণা দেয় ইরান। এর একদিন পরই এমন হুঁশিয়ারি দিলেন ট্রাম্প।

ওই টুইট বার্তায় ট্রাম্প বলেন, ‘ইরানের কাছে কখনো পারমানবিক অস্ত্র থাকবে না।’ ট্রাম্প এই বার্তা দিয়ে শেষে বিষ্ময় চিহ্ন জুড়ে দেন।

২০১৫ সালের পারমাণবিক চুক্তি অনুসারে, পারমাণবিক অস্ত্র তৈরিতে ব্যবহৃত মাঝারি মানের ইউরেনিয়ামের মজুদ সরিয়ে নিতে সম্মত হয়েছিল ইরান। এ ছাড়া যেকোনো ধরনের ইউরেনিয়ামের মজুত ৯৮% কমানো এবং পরবর্তী ১৩ বছরের জন্য ইরানের গ্যাসের পরমাণু সংখ্যা প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ হ্রাস করার জন্য চুক্তিবদ্ধ হয় ইরান।

ট্রাম্প ছাড়াও জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেল, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাকক্রো, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ইরানকে ২০১৫ সালের পারমাণবিক চুক্তি লঙ্ঘন না করার আহ্বান জানিয়েছেন।

জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মের্কেল, ফরাসী রাষ্ট্রপতি এমানুয়েল ম্যাক্রো এবং ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন একটি যৌথ বিবৃতিতে বলেন, ‘আমরা ইরানকে পারমাণবিক চুক্তির সাথে সঙ্গতিপূর্ণ নয় এমন সমস্ত পদক্ষেপ প্রত্যাহারের আহ্বান জানাচ্ছি।’

ইরানের ক্ষমতাধর রেভল্যুশনারি গার্ডের অভিজাত শাখা কুদস ফোর্সের প্রধান ছিলেন মেজর জেনারেল কাসেম সোলেইমানি। গত শুক্রবার ভোরে ইরাকের রাজধানী বাগদাদের বিমানবন্দরের কাছে ড্রোন হামলায় তাকে হত্যা করে যুক্তরাষ্ট্র। একই সঙ্গে নিহত হন ইরাকের শিয়া মিলিশিয়া গ্রুপের নেতাসহ আরও নয়জন। সোলেইমানিকে হত্যার জন্য সরাসরি নির্দেশ দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

এদিকে এ হত্যায় ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি কঠোর প্রতিশোধ নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email