শাল্লা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা’র অপসারন ও শাস্তির দাবীতে সাংবাদিকদের মানববন্ধন

0
312

নাইম তালুকদার, সুনামগঞ্জ: সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলায় এক সাংবাদিক নির্যাতনকারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ এইচ এম আসিফ বিন ইকরামের বিরুদ্ধে সাংবাদিক নির্যাতনে প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে সুনামগঞ্জ জেলায় কর্মরত সকল প্রিন্ট ও ইলেট্রনিক মিডিয়া কর্মরত সাংবাদিকবৃন্দ। মঙ্গলবার দুপুর ১২ টা থেকে ১টা পর্যন্ত শহরের ট্রাফিক পয়েন্ট এলাকায় ঘন্টা ব্যাপী মানবন্ধনে একাত্মতা প্রকাশ করেন বিভিন্ন শ্রেণীপেশার লোকজন। পরে র্দুনীতিবাজ ইউএনও অপসারন ও দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবিতে জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসালামের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেন।

এ সময় মানব বন্ধনে দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন ও বাংলাভিশনের জেলা প্রতিনিধি মাছুম হেলালের উপস্থাপনায় এ সময় বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সাংবাদিক অ্যাডভোকেট শহীদুজ্জামান চৌধুরী, দৈনিক সুনামকণ্ঠের সম্পাদক বিজন সেন রায়, সংবাদের জেলা প্রতিনিধি লতিফুর রহমান রাজু, এটিএনবাংলা ও নিউজের জেলা প্রতিনিধি পংকজ দে,মোহনা টেলিভিশন ও ৭১ নিউজ টেলিভিশনের সুনামগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি কুলেন্দু শেখর দাস,আরটিভির স্টাফ রিপোর্টার আবেদ মাহমুদ চৌধুরী, বৈশাখী টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি মাহবুবুর রহমান পীর,দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশের জেলা প্রতিনিধি আল হেলাল,দৈনিক সুনামগঞ্জের সময় পত্রিকার সম্পাদক ও দীপ্ত টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি সেলিম আহমদ তালুকদার,দৈনিক মানবকণ্ঠের জেলা প্রতিনিধি মোঃ শাহজাহান চৌধুরী, এস এ টিভির প্রতিনিধি মাহতাব উদ্দিন তালুকদার,সময় টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি হিমাদ্রি শেখর ভদ্র,বিজয় টেলিভিশনের প্রতিনিধি অরুণ চক্রবতী,মাছরাঙ্গা টিভির প্রতিনিধি এমরানুল হক চৌধুরী,ইনডিপেন্ডেট টিভির প্রতিনিধি জাকির হোসেন.যমুনা টিভির প্রতিনিধি মাহমুদুর রহমান তারেক,একুশে টিভির প্রতিনিধি মোঃ আব্দুস সালাম, জামালগঞ্জ উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি অজ্ঞন পুরকায়স্থ,সাধারন সম্পাদক তৌহিদ চৌধুরী প্রদীপ,দৈনিক ইত্তেফাকের জেলা প্রতিনিধি মোঃ বোরহান উদ্দিন,দৈনিক বাংলাদেশ সময়ের প্রতিনিধি মোঃ শাহাব উদ্দিন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি মহি উদ্দিন মহিম,সাধারন সম্পাদক নুরল হক, সিলেট টাইমসের বার্তা সম্পাদক নাইম তালুকদার, কাজী জমিরুল ইসলাম মমতাজ,শাল্লা উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি বাদল চন্দ্র দাস,পি সি দাস (পীজুষ),সাংবাদিক জয়ন্ত সেন,রুহুল আমীন,তাহিরপুর উপজেলা সাংবাদিক মোঃ সাজ্জাদ হোসেন,দিরাই উপজেলা সাংবাদিক সৈয়দুর রহমান,দোয়ারবাজার উ্পজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি এম এ করিম লিলু প্রমুখ। এসময় সাংবাদিক নেতৃবৃন্দরা আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে দুর্নীতিবাজ ও সাংবাদিক নির্যাতনকারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অপসারন ও দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও জেলা প্রশাসকের নিকট দাবি জানান। অন্যতায় আগামীতে জনগনকে সংগে নিয়ে রাজপথে কঠোর আন্দোলন কর্মসুচির ঘোষণা করার প্রত্যয় ব্যাক্ত করেন তারা। উল্লেখ্য গত ২৫ সেপ্টেম্বর সুনামগঞ্জ থেকে প্রকাশিত একটি দৈনিক ও সিলেট থেকে প্রকাশিত দৈনিকে শাল্লা উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ এইচ এম আসিফ বিন ইকরামের বিরুদ্ধে অনিয়ম র্দূনীতির একটি রিপোর্ট প্রকাশিত হলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে ঐদিন শাল্লার উপজেলা প্রতিনিধি বকুল আহমেদ তালুকদারের দোকানে গিয়ে তিনি তাকে পিঠিয়ে গুরুতর আহত করেন। এরপর ইউএনও নিজে দোকানের জিনিসপত্র বাইরে ছুঁড়ে ফেলে দেন এবং সঙ্গে থাকা লোকজনকে নির্দেশ দিয়ে পেট্রোল দিয়ে দোকানে আগুন ধরিয়ে দেন। পাশাপাশি ঐ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে দুটি মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেন। এঘটনায় শাল্লা উপজেলার সাংবাদিকগন দুইদিন ধরে এলাকা ছাড়া অবস্থায় রয়েছেন। আহত সাংবাদিককে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এর আগে ইউএনও আসিফ বিন ইকরাম সিলেটের কোম্পানিগঞ্জ উপজেলায় থাকতে পরিবেশবিধ্বংসী বোমামেশিন চালানোর সুযোগ দিতে আবদুল আলী নামের এক পাথর ব্যবসায়ীর কাছ থেকে দুই দফায় ৩০ লাখ টাকা ঘুষ নিয়ে তাঁর স্ত্রীর ব্যাংক হিসাবে রেখে দেন। এ নিয়ে একটি জাতীয় প্রতিবেদন ছাপা হয়েছিল। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় এ ঘটনার তদন্ত করে সত্যতা পাওয়ায় ইউএনওর দুটি ইনক্রিমেন্ট বন্ধ রেখেছে। এ নিয়ে ‘৩০ লাখ টাকা ঘুষের সাজা দুটি ইনক্রিমেন্ট বন্ধ করে দেয়ায় সাংবাদিকদের দেখলেই তেড়ে আসেন মারার জন্য।

Print Friendly, PDF & Email